৫-১১ বছর বয়সী শিশুদের করোনা ভ্যাকসিনেশন কার্যক্রম উদ্বোধন করলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী

শুক্রবার, আগস্ট ১২, ২০২২,১:০৮ অপরাহ্ণ
0
26

[ + ফন্ট সাইজ বড় করুন ] /[ - ফন্ট সাইজ ছোট করুন ]

গতকাল রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে দেশের ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী শিশুদের কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন প্রদান কর্মসূচির উদ্বোধন করেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

উদ্বোধন অনুষ্ঠানে মন্ত্রী বলেন, আজ দেশের সকল ৫-১১ বছর বয়সী শিশুদের কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনেশনের আওতায় নিয়ে আসা হয়েছে। ইতোমধ্যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে দেশের জনগোষ্ঠীর উপযোগী প্রায় ৪ কোটি ডোজ চভরুবৎ Pfizer paediatric formulation কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন প্রাপ্তি নিশ্চিত করেছে সরকার। যার মধ্যে প্রায় ৩০ লাখ ডোজ দেশে এসে পৌঁছেছে। অচিরেই অবশিষ্ট ডোজসমূহও দেশে এসে পৌঁছাবে।

এ সময় দেশে ভ্যাকসিনের বর্তমান মজুতের বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, বর্তমানে দেশে কেন্দ্রীয় পর্যায়ে মোট ১ কোটি ৩১ লাখ ৪৭ হাজার ৮৩৯ ডোজ ভ্যাকসিন মজুত রয়েছে। আগস্ট মাস পর্যন্ত দেশে মোট সংগৃহীত কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন সংখ্যা ৩১ কোটি ৯ লাখ ৩৮ হাজার ৮০০। মোট প্রদানকৃত ১ম ডোজ ১২ কোটি ৯৭ লাখ ৬ হাজার ৩৬২ এবং ২য় ডোজ ১২ কোটি ৭ লাখ  হাজার ১২০। মোট প্রদানকৃত বুস্টার (৩য়) ডোজ ৪ কোটি ৬ লাখ ৫৯ হাজার ৯৭৮।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এবিএম খুরশীদ আলমের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাহিদ মালেক, বিশেষ অতিথি হিসেবে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি, স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব ড. মুহ. আনোয়ার হোসেন হাওলাদার, স্বাস্থ্য শিক্ষা বিভাগের সচিব সাইফুল ইসলাম বাদল, আমেরিকার রাষ্ট্রদূত পিটার ডি হাস, জার্মানির রাষ্ট্রদূত আখিম ট্রস্টার, ইউনিসেফের প্রতিনিধি শেলডন ইয়েটসহ অন্যান্য কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

সারা দেশের সকল সিটি কর্পোরেশনে ৫-১১ বছর বয়সী শিশুদের বিদ্যালয় কেন্দ্রিক ভ্যাকসিনের পরবর্তী কার্যক্রম আগামী ২৫ আগস্ট শুরু হবে। ইতোমধ্যেই সুরক্ষা ওয়েবপোর্টাল/অ্যাপের মাধ্যমে উক্ত বয়সসীমার শিশুদের রেজিস্ট্রেশন শুরু হয়েছে। রেজিস্ট্রেশনের ক্ষেত্রে ১৭ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন নম্বর ব্যবহার করতে হবে। সিটি কর্পোরেশনসমূহের প্রতিটি ওয়ার্ডে নির্বাচিত বিদ্যালয়ে ভ্যাকসিন প্রদান করা হবে। পর্যায়ক্রমে জেলা, উপজেলা ও পৌরসভাসমূহে বিদ্যালয় ও কমিউনিটি পর্যায়ে এই ভ্যাকসিন প্রদান করা হবে। স্কুলপড়ুয়া শিশুরা কোভিড-১৯ টিকা কার্ড প্রদর্শন সাপেক্ষে নিকটস্থ বিদ্যালয়ে ভ্যাকসিনেশন সেন্টার ও পরবর্তীতে স্কুল বহির্ভূত শিশুরা কমিউনিটি পর্যায়ে নিকটস্থ কেন্দ্র হতে ভ্যাকসিন গ্রহণ করতে পারবে।এ কর্মসূচির আওতায় সারা দেশের প্রায় ২ দশমিক ২ কোটি ৫-১১ বছর বয়সী শিশুকে ভ্যাকসিন প্রদানের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।

এছাড়া আগামী ২০ আগস্ট এক দিনব্যাপী ১৮ বছর ও তদূর্ধ্ব জনগোষ্ঠীর জন্য ১ম, ২য় ও বুস্টার (৩য়) ডোজ ভ্যাকসিনেশন ক্যাম্পেইন আয়োজন করা হবে।

বিঃদ্রঃ মানব সংবাদ সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে