হেফাজতের তাণ্ডব, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের ঘটনায় ওয়ার্কার্স পার্টির তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ

শনিবার, মার্চ ২৭, ২০২১,১:০৫ অপরাহ্ণ
0
20

[ + ফন্ট সাইজ বড় করুন ] /[ - ফন্ট সাইজ ছোট করুন ]

বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির পলিটব্যুরো আজ ২৭ মার্চ এক বিবৃতিতে চট্টগ্রামের হাটহাজারী ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হেফাজতের তান্ডব, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছে।

বিবৃতিতে বলা হয় হেফাজতী নেতৃত্বের ষড়যন্ত্রমূলক নির্দেশ বাস্তবায়ন করতে গিয়ে ৩ জন মাদ্রাসার ছাত্রসহ পাঁচজনের প্রাণ গেছে এবং রেলস্টেশনসহ রাষ্ট্রীয় সম্পত্তির ক্ষতিসাধন করা হয়েছে। এটা স্পষ্ট যে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও মুজিব শতবর্ষ পালনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতেই তারা পরিকল্পিতভাবে ভাস্কর্য্য ভেঙে ফেলার হুমকিদান, শাল্লার হিন্দুগ্রামে সাম্প্রদায়িক হামলা এবং সবশেষে ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদীর ঐ অনুষ্ঠানমালায় যোগদানের বিরোধীতার নামে একেরপর এক এসব ঘটনা ঘটিয়ে চলেছে। এখানে একই সময় একটি রাজনৈতিক মেরুকরণের প্রচেষ্টা গত কিছু সময় ধরে লক্ষ্যনীয়। এসব ইস্যুতে হেফাজতের সাথে কণ্ঠ মিলিয়ে একইভাবে বাম ও মধ্যপন্থার নামের বিভিন্ন সংগঠনও ঘটনা ঘটাতে একের পর এক কর্মসূচী দিচ্ছে ও আজও দিয়েছে।

বিএনপির ২৬-২৭ এর সুবর্ণজয়ন্তীর কর্মসূচী প্রত্যাহার ও জামাতের নিশ্চুপতাও এখানে লক্ষণীয়। ওয়ার্কার্স পার্টি একথা বলে আসছে যে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের অর্জনসমূহকে ধ্বংস করতে দেশী-বিদেশী চক্রান্তকারীরা এখনও সমভাবে তৎপর। অন্যদিকে তথাকথিত স্থিতিশীলতার নামে হেফাজতকে পক্ষে রাখতে তাদের সাথে ক্ষমতাসীন সরকার ও দলের সমঝেতা ও এসব বিষয়ে একের পর এক ছাড় দেয়ার পরিণাম ফলই এটি। ওয়াজ মাহফিল ও ইউটিউবে হেফাজত ও তার অনুসারীরা একের পর এক ধর্মীয় বিদ্বেষ ছড়ালেও, ধর্মীয় উস্কানী প্রদান করে চললেও তার বিরুদ্ধে বহু অপপ্রয়োগের ব্যাপারে আলোচিত-সমালোচিত ডিজিটাল আইনও প্রয়োগের কোন প্রয়োজন বোধ করছে না সরকার।

ওয়ার্কার্স পার্টি বহু আগেই বলেছে যে, সাপের মুখে চুমু খেলেও, সাপ ছোবল মারবেই। এই কৌশল যে কত বৃথা বাংলাদেশ পরবর্তী রাজনৈতিক ঘটনাবলী তার প্রমাণ। ওয়ার্কার্স পার্টির বিবৃতিতে সাম্প্রদায়িকতা-মৌলবাদী এধরণের চক্রান্তকে রুখে দাঁড়াতে সকল বাম, গণতান্ত্রিক প্রগতিশীল শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে ও প্রতিরোধ গড়ে তুলতে আহ্বান জানান হয়।

বিঃদ্রঃ মানব সংবাদ সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে