স্মার্টফোন কিনে না দেওয়ায় তাড়াইলে স্কুলছাত্রের ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা

শুক্রবার, জুলাই ৯, ২০২১,১১:৩০ পূর্বাহ্ণ
0
11

[ + ফন্ট সাইজ বড় করুন ] /[ - ফন্ট সাইজ ছোট করুন ]

আল-মামুন খান, তাড়াইল(কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি : কিশোরগঞ্জের তাড়াইল উপজেলার দড়িজাহাঙ্গীরপুর গ্রামের জয় (৮) নামে এক শিশু বাচ্চাকে স্মার্ট মোবাইল ফোন কিনে না দেয়ায় গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। জয় কিশোরগঞ্জ জেলার তাড়াইল উপ‌জেলার দ‌ড়িজাহাঙ্গীরপুর গ্রা‌মের কামরুল ইসলা‌মের ছোট ছে‌লে। সে স্থানীয় ব্রাক স্কু‌লের শিশু শ্রেণীর ছাত্র ছিল।

বৃহস্পতিবার দুপুরে তাড়াইল থানার পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে। তাড়াইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জয়নাল আবেদীন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।


প্রতিবেশী মো. আলম মিয়া বলেন, নিহতের বাবা ঢাকায় একটি ব্যবসা করেন। তার আরো দুই ছেলে ও এক মেয়ে আছে। সংসার চালাতেই অনেক কষ্ট হয় কামরুল মিয়ার। তার পরে করোনায় সব বন্ধ থাকায় কষ্ট করে চলতে হচ্ছে তাদের। স্কুল বন্ধ থাকায় পাড়ার ছেলেদের সাথে স্মার্ট মোবাইল ফোনে পাব‌জি ফ্রি ফায়ারসহ অন্যান্য অনলাইন গেইম খেলার নেশায় পেয়ে বসে জয়ের। সেই কারণে বৃহস্পতিবার বেলা ১১ টার দি‌কে গেমস খেলার জন্য স্মার্ট মোবাইল ফোন কিনে দিতে মায়ের কাছে বায়না ধরে জয়। অভাবের সংসার এমনিতে লকডাউনে চলতেই কষ্ট হচ্ছে তাই মোবাইল ফোন কিনে দিতে অস্বীকৃতি জানান তার মা।


এসময় জয় মোবাইল কেনার জন্য বেশি চাপ দিলে বকাঝকা করেন তার মা। কিছুক্ষণ পর তার মা গ্রামের এক আ‌ত্বীয়ের বাড়িতে চলে যায়। মা চলে যাওয়ায় জয় তাদের নিজ ফাঁকা ঘরে গিয়ে সিলিং ফ্যানের সঙ্গে দ‌ড়ি লাগিয়ে গলায় ফাঁস‌ দেয়।
⁠মা বাড়িতে ফিরে এসে ঘরের দরজা বন্ধ পাওয়ায় জানালা দিয়ে ঘরে তাকিয়ে দেখে জয় ফাঁ‌সিতে ঝুলে আছে। তখন সে চিৎকার করলে প্রতিবেশি লোকজন ছুটে আসে।


তাড়াইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জয়নাল আবেদীন জানান, ঘটনা বেলা ১২ টার দিকে ঘটলেও আমরা বিকাল তিনটার দিকে খবর পাই। পরে সাব-ইন্স‌পেক্টর গোলাম কবিরের নেতৃত্বে তাড়াইল থানা পু‌লিশ ঘটনাস্থলে উ‌পস্থিত হয়।
⁠‌তি‌নি আ‌রও জানান, প্রতিবেশিদের কাছ থেকে আমরা জানতে পেয়েছি শিশু জয় খুব রা‌গি ছিলো ও তার কিছুটা মান‌সিক সমস্যাও ছিলো। এ ঘটনায় কোনো মামলা না হওয়ায় ও পরিবারের আবেদনের প্রেক্ষিতে ময়নাতদন্ত ছাড়ায় লাশ দাফন করার অনুম‌তি দেয়া হয়।

বিঃদ্রঃ মানব সংবাদ সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে