স্বৈরাচার পতন দিবস আজ

শুক্রবার, ডিসেম্বর ৬, ২০১৯,৭:০০ পূর্বাহ্ণ
0
33

[ + ফন্ট সাইজ বড় করুন ] /[ - ফন্ট সাইজ ছোট করুন ]

আজ ৬ ডিসেম্বর তুমুল গণ-আন্দোলনের মুখে স্বৈরশাসক হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের পতন দিবস। ২৯ বছর আগে স্বৈরাচার এরশাদ ১৯৯০ সালের ৬ ডিসেম্বর পদত্যাগে বাধ্য হয়েছিলেন। তাঁর ৯ বছরের স্বৈরশাসনের অবসান ঘটে পদত্যাগের মধ্য দিয়ে। গণতান্ত্রিক যাত্রা শুরু করে বাংলাদেশ দ্বিতীয়বার। ‘স্বৈরাচার পতন দিবস’ হিসেবে জনসাধারণের কাছে দিনটি পরিচিতি পায়। তবে দিনটিকে ‘সংবিধান সংরক্ষণ দিবস’ হিসেবে পালন করে এরশাদের গঠন করা জাতীয় পার্টি। তৎকালীন সেনাপ্রধান এরশাদ ১৯৮২ সালের ২৪ মার্চ রাষ্ট্রক্ষমতা দখল করেছিলেন।

শীর্ষস্থানীয় সেনা কর্মকর্তারা এরশাদের বিরুদ্ধে চলমান গণ-আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকা সেনানিবাসে ১৯৯০ সালের ১ ডিসেম্বর এক জরুরি বৈঠক করেন। ওই বৈঠকের মূল এজেন্ডা ছিল আন্দোলন পরিস্থিতিতে সেনাবাহিনীর ভূমিকা কী হওয়া উচিত-এটাই। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসির কাছে ডা. শামসুল আলম মিলনকে গুলি করে হত্যা করা হয় এর মাত্র চার দিন আগেই। তখন স্ফুলিঙ্গের মতো ছড়িয়ে পড়ছে সারা দেশে এরশাদবিরোধী আন্দোলন। আবারও সামরিক আইন জারি করতে চেয়েছিলেন এমন অবস্থায় প্রেসিডেন্ট এরশাদ। কিন্তু ওই বৈঠকে শীর্ষ সেনা কর্মকর্তারা সিদ্ধান্ত নেন, তাঁরা আর এরশাদের পেছনে থাকবেন না। মূলত ওই দিনই ভিত নড়ে যায় প্রতাপশালী স্বৈরাচার এরশাদের। আনুষ্ঠানিকভাবে এরশাদ পদত্যাগের ঘোষণা দেন ৪ ডিসেম্বর রাতে। তাঁর পদত্যাগের প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয় এর পরের দুই দিনে। 

বিঃদ্রঃ মানব সংবাদ সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে