স্বয়ংক্রিয়ভাবে চালান জমার পদ্ধতির উদ্বোধন

শুক্রবার, অক্টোবর ৯, ২০২০,১২:২৭ অপরাহ্ণ
0
28

[ + ফন্ট সাইজ বড় করুন ] /[ - ফন্ট সাইজ ছোট করুন ]

ট্রেজারি চালানের অর্থ জমা প্রদানের প্রচলিত পদ্ধতি সহজীকরণ, গ্রাহক ভোগান্তি হ্রাস, ভুয়া চালান জমা ও রাজস্ব ফাঁকির প্রবণতা রোধসহ সঠিক সময়ে চালানের অর্থ সরকারি কোষাগারে জমা নিশ্চিত  করার জন্য স্বয়ংক্রিয় চালান পদ্ধতি উদ্বোধন করা হয়েছে। স্বয়ংক্রিয় চালান পদ্ধতি-এর মাধ্যমে বাংলাদেশ ব্যাংকসহ সকল বাণিজ্যিক ব্যাংকের যেকোন শাখায় ট্রেজারি চালানের অর্থ জমা নেওয়া যাবে। বর্তমানে শুধুমাত্র বাংলাদেশ ব্যাংকের ৯টি শাখায় এবং সোনালী ব্যাংকের ১ হাজার ২২৪টি শাখায় ট্রেজারি চালানের অর্থ গ্রহণ করা হচ্ছে।

অর্থবিভাগের বাস্তবায়নাধীন ‘স্ট্রেনদেনিং পাবলিক ফাইন্যান্সিয়াল ম্যানেজমেন্ট প্রোগ্রাম টু এনাবল সার্ভিস ডেলিভারি’ (এসপিএফএমএস) প্রোগ্রামের অধীন ‘ইমপ্রুভমেন্ট অফ পাবলিক ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস ডেলিভারি থ্রু ইমপ্লিমেন্টেশন অফ BACS এন্ড iBAS++ স্কিম’ এর আওতায় উদ্ভাবিত ‘স্বয়ংক্রিয় চালান পদ্ধতি’ (Automated Challan System) আজ Zoom Platfrom-এ যৌথভাবে উদ্বোধন করেন সিনিয়র সচিব, অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগ ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান আবু হেনা মোঃ রহমাতুল মুনিম এবং অর্থবিভাগের সিনিয়র সচিব আব্দুর রউফ তালুকদার।

এছাড়া স্বয়ংক্রিয় চালান পদ্ধতিতে  ব্যাংক শাখার কাউন্টারে নগদ, চেক ও অ্যাকাউন্ট ডেবিট এর মাধ্যমে অর্থ জমাসহ গ্রাহক অনলাইন ব্যাংকিং ও মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সিস্টেম এর মাধ্যমেও চালানের অর্থ জমা দিতে পারবেন। নগদ, অনলাইন ব্যাংকিং বা MFS-এর মাধ্যমে অর্থ জমা দেওয়া হলে গ্রাহককে তাৎক্ষণিকভাবে চালানের কপি দেওয়া হবে, চেকের ক্ষেত্রে গ্রাহক চেক জমা স্লিপ পাবেন এবং পরবর্তীতে চেক ক্লিয়ার হলে গ্রাহককে পূর্ব নির্ধারিত সময়সূচি অনুযায়ী চালান দেওয়া হবে। চেক গ্রহণ এবং চালান ইস্যু প্রতিটি স্তরেই গ্রাহক তাঁর মোবাইলে মেসেজ পাবেন।

স্বয়ংক্রিয় চালান পদ্ধতি সারাদেশ ৩ পর্যায়ে বাস্তবায়ন করা হবে। ১ম পর্যায়ে ঢাকা মহানগরীর সোনালী ব্যাংকসহ ৪টি রাষ্ট্রায়ত্ত্ব ব্যাংক-রূপালী, অগ্রণী, জনতা ব্যাংকের সকল শাখায়, ২য় পর্যায়ে ঢাকা মহানগরীর অন্যান্য সকল বাণিজ্যিক ব্যাংকের সকল শাখায় এবং ৩য় পর্যায়ে সারা দেশে সকল বাণিজ্যিক ব্যাংকের সকল শাখায় বাস্তবায়ন করা হবে।

‘স্বয়ংক্রিয় চালান পদ্ধতি’  পূর্ণাঙ্গভাবে বাস্তবায়ন করা হলে সরকারের রাজস্ব ব্যবস্থাপনায় যুগান্তকারি অগ্রগতি সাধিত হবে। রাজস্ব জমা প্রদান ব্যবস্থাপনায় স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা সম্ভব হবে। ‘স্বয়ংক্রিয় চালান পদ্ধতি’ এর মাধ্যমে  প্রতিটি চালানের ক্ষেত্রে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ব্যাংক, হিসাবরক্ষণ অফিস ও সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান যেমন- জাতীয় রাজস্ব বোর্ড-এর মধ্যে সংগতিসাধন-এর ফলে সরকারের রাজস্ব জমা বাড়বে। রাজস্ব আহরণের ক্ষেত্রে সরকারি প্রতিষ্ঠান ও হিসাবরক্ষণ কার্যালয়ের প্রদত্ত হিসাবের মধ্যকার পার্থক্য দূর হবে। সরকারি প্রাপ্তি সম্পর্কিত হালনাগাদ তথ্য সরকারের আর্থিক অবস্থান (fiscal position) ও খণ ব্যবস্থাপনা কৌশল নিধারণে ভূমিকা রাখবে।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর আহমেদ জামাল, হিসাব মহানিয়ন্ত্রক মোঃ জহুরুল ইসলাম, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড সদস্য মোঃ আলমগীর হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।  

বিঃদ্রঃ মানব সংবাদ সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে