শিক্ষকের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের সমাবেশ

মঙ্গলবার, এপ্রিল ১২, ২০২২,১০:৩৬ পূর্বাহ্ণ
0
24

[ + ফন্ট সাইজ বড় করুন ] /[ - ফন্ট সাইজ ছোট করুন ]

বিজ্ঞান শিক্ষক হৃদয় চন্দ্র মন্ডলের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার, সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে খাবারের মান বাড়িয়ে দাম কমানোর দাবিতে গতকাল সোমবার বিকেল ৪টায় নিউ মার্কেট মোড়ে সমাতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের ছাত্র সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলার বিনোদপুর রামকুমার উচ্চবিদ্যালয়ের বিজ্ঞান শিক্ষক হৃদয় মন্ডলের বিরুদ্ধে ধর্মীয় অবমাননার দায়ে মামলার ভিত্তিতে গ্রেপ্তার হন। গত ১০ এপ্রিল ১৯দিন পর জামিনে মুক্তি পান। তার বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে অনুষ্ঠিত সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট চট্টগ্রাম নগরের সভাপতি মিরাজ উদ্দিন, উপস্থিত ছিলেন সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি মিরাজ উদ্দিন, চট্টগ্রাম নগরের সাধারণ সম্পাদক প্রীতম বড়ুয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক সাকিব হোসেন সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

সভায় বক্তারা বলেন, শিক্ষাক্ষেত্রের সাম্প্রদায়িকিকরণের ফলে দেশের বিজ্ঞান শিক্ষা আজ হুমকির মুখে। জাতীয় শিক্ষাক্রম রূপরেখ ২০২০-এ বিজ্ঞান শিক্ষা সংকুচিত হওয়ার পথে। এই সময়ে হৃদয় চন্দ্র মন্ডলের মত শিক্ষককে যখন পুরষ্কৃত করা উচিৎ, সেই সময়ে আমরা দেখছি তাকে মিথ্যা মামলায় ১৯ দিন জেলে থাকতে হচ্ছে। এই ঘটনা দেশের সকল শিক্ষককে অবমাননার শামিল। কিন্তু আজ এই ঘটনার প্রেক্ষিতে দেশের শিক্ষকসমাজের কোন সংগঠিত প্রতিবাদ আমাদের চোখে পরেনি। এই অপ্রতিবাদী শিক্ষক সমাজ আজকের শিক্ষাঙ্গনের অগণতান্ত্রিকতার ফল। নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, একটি উন্নয়নশীল দেশে হিসেবে বাংলাদেশের শিক্ষব্যবস্থা হওয়ার কথা ছিল বিজ্ঞানভিত্তিক, কিন্তু তার পরিবর্তে আমরা দেখছি শিক্ষক-শিক্ষার্থীর ধর্মান্ধতা ও কুপমন্ডুকতা। হাতেগোনা কয়েকজন শিক্ষক ব্যক্তিগত পর্যায়ে নিজেদের উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। তার বাইরে কোন প্রতিবাদ হচ্ছে না। যা ভবিষ্যত প্রজন্ম গড়ার ক্ষেত্রে শিক্ষকদের অবদানকে প্রশ্নবিদ্ধ করে। সমাবেশ থেকে নেতৃবৃন্দ শিক্ষক হৃদয় মন্ডলের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহর করে, যারা উদ্দেশ্যপ্রনোদিতভাবে এই মামলা করে একজন শিক্ষককে অবমাননা করেছেন, তাদেরকে বিচারের আওতায় এনে শাস্তির দাবি করেন।

খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী অন্তু রায়য়ের ক্যান্টিনে খাবারের বিল পরিশোধ করতে না পেরে আত্মহত্যার ঘটনায় প্রশাসনের ভুমিকার ধিক্কার জানান নেতৃবৃন্দ। এই ঘটনার দায় রাষ্ট্রকেই নিতে হবে।

বিঃদ্রঃ মানব সংবাদ সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে