রাহাত খান বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী ছিলেন : স্থানীয় সরকার মন্ত্রী

শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০২০,৯:৩৪ পূর্বাহ্ণ
0
11

[ + ফন্ট সাইজ বড় করুন ] /[ - ফন্ট সাইজ ছোট করুন ]

স্থানীয় সরকার মন্ত্রী মোঃ তাজুল ইসলাম বলেছেন, একুশে প্রদকপ্রাপ্ত রাহাত খান ছিলেন একাধারে কথাসাহিত্যিক, লেখক ও সাংবাদিক। তিনি বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী ছিলেন।

মন্ত্রী গতকাল ঢাকার তেজগাঁওয়ে প্রতিদিনের সংবাদ পত্রিকার কার্যালয়ে কথাসাহিত্যিক ও পত্রিকাটির প্রয়াত সম্পাদক রাহাত খান স্মরণে আয়োজিত দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্য এসব কথা বলেন।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রী বলেন, আমি ছোট বেলা থেকেই রাহাত খান এই নামটি শুনেছি। তবে তাঁর সঙ্গে আমার পরিচয় প্রতিদিনের সংবাদের সম্পাদকের দায়িত্ব নেওয়ার সময়। তিনি অত্যন্ত দূরদৃষ্টিসম্পন্ন ব্যক্তি ছিলেন। আমি তাঁর বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করি।

প্রতিদিনের সংবাদ পত্রিকার সাথে জড়িত সকলের উদ্দেশে মন্ত্রী বলেন, বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন করে এই পত্রিকাটিকে আরও এগিয়ে নিতে হবে। প্রতিদিনের সংবাদ পত্রিকাটির মাধ্যমেই রাহাত খান সবার মাঝে বেঁচে থাকবেন বলে মন্তব্য করেন তিনি। এ সময় প্রয়াত কথাসাহিত্যিকের স্ত্রী অপর্না খানকে আশ্বস্ত করে মন্ত্রী বলেন, রাহাত খানের পরিবারের সঙ্গে প্রতিদিনের সংবাদ পরিবার ও কর্তৃপক্ষ সবসময়ই যোগাযোগ রাখবে এবং তাদের পাশে থাকবে।

প্রতিদিনের সংবাদের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক এস এম মাহবুবুর রহমানের সভাপতিত্বে দোয়া মাহফিলে বিশেষ অতিথি ছিলেন জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি ও দৈনিক যুগান্তরের সম্পাদক সাইফুল আলম, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদ, সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ আলম খান তপু ও রাহাত খানের স্ত্রী অপর্ণা খান।

          উল্লেখ্য, একুশে পদকজয়ী রাহাত খান গত ২৮ শে আগস্ট মৃত্যুবরণ করেন। সাহিত্যকর্মের স্বীকৃতি হিসেবে ১৯৯৬ সালে তিনি একুশে পদক এবং ১৯৭৩ সালে বাংলা একাডেমি পুরস্কার লাভ করেন।

বিঃদ্রঃ মানব সংবাদ সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে