রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার উপলক্ষে রাষ্ট্রপতির বাণী

সোমবার, ডিসেম্বর ২৮, ২০২০,১০:০৭ পূর্বাহ্ণ
0
7

[ + ফন্ট সাইজ বড় করুন ] /[ - ফন্ট সাইজ ছোট করুন ]

রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ আজ ২৮ ডিসেম্বর অনুষ্ঠেয় ‘রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার ২০১৮’ প্রদান অনুষ্ঠান উপলক্ষ্যে নিম্নোক্ত বাণী প্রদান করেছেন :

          “শিল্প মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে শিল্পোন্নয়নে উল্লেখযোগ্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরুপ ‘রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার ২০১৮’ প্রদানের উদ্যোগকে আমি স্বাগত জানাই।

          শিল্পায়ন একটি জ্ঞানভিত্তিক ও সৃজনশীল প্রয়াস। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর বহমান স্বাধীনতার পরপরই দেশের অর্থনীতি পুনর্গঠনের লক্ষ্যে তৃণমূল পর্যায়ে শিল্পায়নের ওপর গুরুত্ব দিয়েছিলেন। তিনি দেশীয় কাঁচামাল-নির্ভর শিল্প কারখানা গড়ে তোলার মাধ্যমে শিল্পখাতে সমৃদ্ধি অর্জনের প্রচেষ্টা জোরদার করেছিলেন। স্বাধীনতাবিরোধী ঘাতকচক্র ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট তাঁকে সপরিবারে হত্যার মাধ্যমে বাঙালি জাতির কাঙ্খিত অর্থনৈতিক মুক্তি অর্জনের প্রচেষ্টাকে থামিয়ে দিতে চেয়েছিল। কিন্তু বীর বাঙালি জাতি কখনো কোনো অপশক্তির কাছে মাথানত করেনি। বঙ্গবন্ধুর অর্থনৈতিক দর্শনের আলোকে বর্তমানে বাংলাদেশের শিল্পায়নের ধারাকে এগিয়ে নেয়া হচ্ছে। শিল্পখাতে দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণে সরকার ১০০টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তুলছে। শিল্প-কারখানায় আধুনিক ও পরিবেশবান্ধব প্রযুক্তির প্রয়োগ বাড়ানো হয়েছে। ফলে দেশেই এখন বিশ্বমানের শিল্পপণ্য উৎপাদিত হচ্ছে এবং রপ্তানি বাণিজ্যে বাংলাদেশের অবস্হান ক্রমেই শক্তিশালী হচ্ছে। সরকারের এ সকল উদ্যোগ শিল্পায়নের মাধ্যমে কর্মসংস্হান সৃষ্টি এবং অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে।

          শিল্পখাতে কর্মসংস্হান সৃষ্টি, রপ্তানি প্রবৃদ্ধি ও রপ্তানি পণ্যের বহুমূখীকরণে বেসরকারি খাতের অবদান অনস্বীকার্য। বেসরকারি খাতে উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি ও সৃজনশীলতাকে উৎসাহিত করার লক্ষ্যে শিল্প মন্ত্রণালয় নিয়মিত বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে ‘রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার’ প্রদান করে আসছে। আমি সম্মাননাপ্রাপ্ত সকল শিল্পোদ্যোক্তাকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানাচ্ছি। আমি আশা করি, এ উদ্যোগ জ্ঞানভিত্তিক শিল্পায়নের চলমান ধারাকে সুসংহত করবে এবং এর মাধ্যমে সামগ্রিক জাতীয় অর্থনৈতিক অগ্রগতির ধারা আরো বেগবান হবে।

          আমি ‘রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার ২০১৮’ প্রদান অনুষ্ঠানের সাফল্য কামনা করি।

জয় বাংলা।

খোদা হাফেজ, বাংলাদেশ চিরজীবী হোক।”

বিঃদ্রঃ মানব সংবাদ সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে