ভোট সুষ্ঠু নিয়ে শঙ্কা, মেয়র প্রার্থীর ওসি ও জেলা গোয়েন্দা পুলিশের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ

বৃহস্পতিবার, জুলাই ১৩, ২০২৩,৭:৩৭ অপরাহ্ণ
0
8

[ + ফন্ট সাইজ বড় করুন ] /[ - ফন্ট সাইজ ছোট করুন ]

স্থানীয় এমপির বিরুদ্ধেও সংবাদ সম্মেলনে এক প্রার্থীর অভিযোগ

কুমিল্লার দেবিদ্বার পৌরসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থী সাইফুল ইসলাম শামীম, দেবিদ্বার থানার ওসি কমল কৃষ্ণ ধর ও কুমিল্লা জেলা গোয়েন্দা পুলিশের বিরুদ্ধে হুমকি, হয়রানি, নির্বাচনী প্রচারণায় বাধার অভিযোগ এনে পাঁচ স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। বৃহস্পতিবার দুপুরে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের বরাবর এ লিখিত অভিযোগ দেন তাঁরা। অভিযোগকারী পাঁচ মেয়র প্রার্থীরা হলেন-এমএ কাইয়ুম ভূঁইয়া (ক্যারামবোর্ড), মো. আবুল কাশেম (নারকেলগাছ), শাহজাহান মোল্লা (ইস্ত্রি), এবিএম আতিকুর রহমান বাসার (মোবাইল ফোন) ও শরিফুল ইসলাম সুমন (চামচ)।
ওই লিখিত অভিযোগে তাঁরা বলেন, দেবিদ্বার থানার ওসি ও জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন আছে। তাঁরা রাতের আধারে অভিযানের নামে সাধারণ ভোটারদের মধ্যে আতঙ্ক ছাড়াচ্ছে। আমাদের কর্মী-সমর্থকদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভয়ভীতি দেখাচ্ছে। তারা যাতে নির্বাচনী কাজ না করতে বাধা দিচ্ছেন। এটা তো নির্বাচনী লেভেল প্লেয়িং হতে পারে না। তাদের এমন ভূমিকায় অব্যাহত থাকলে সুষ্ঠু নির্বাচন পরিবেশ ব্যহত হবে। আমরা সুষ্ঠু ভোট চাই ও ভোটের পরিবেশ চাই। সাধারণ মানুষ যাতে ভোট কেন্দ্রে এসে নিরাপদে তাদের ভোট দিতে পারে এমন একটি পরিবেশ চাই।
পরে বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে স্থানীয় একটি প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেন স্বতন্ত্র প্রার্থী এমএ কাইয়ুম ভূঁইয়া। সংবাদ সম্মেলনেও তিনি লিখিত বক্তব্য দেন।
লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের প্রার্থী নির্বাচনী বিধি লঙ্ঘন করে অন্তত ৫০টির বেশি নির্বাচনী কার্যালয় বানিয়েছেন। তিনি নির্বাচনী এলাকার বাইরে থেকে বহিরাগত সন্ত্রাস দিয়ে আমাদের নির্বাচনী প্রচারণায় বাধা ও হামলা করছে। বারেরায় নির্বাচনী গণসংযোগ করতে গেলে নৌকার প্রার্থীর বহিরাগত কর্মী-সমর্থকরা আমাকে হত্যার চেষ্টা করেন। আমার প্রাণ বাঁচাতে আমাকে একটি ঘরে তালাবদ্ধ করে রাখা হয়, না হলে তারা আমাকে মেরে ফেলত। এসময় আমার তিন কর্মীকে বেধরক পিটিয়ে আহত করে। গত মঙ্গলবার রাতেও আমার দুই কর্মীকে মারধর করা হয়েছে। তাঁরা প্রতিদিন আমাদের নির্বাচনী প্রচারে বাঁধা দিচ্ছে। স্থানীয় এমপি রাজী মোহাম্মদ ফখরুল তাঁর বনকুট বাড়িতে আমার কর্মীদের ডেকে নিয়ে আমার পক্ষে কাজ না করতে চাপ প্রয়োগ করেন। এটি সুস্পষ্ট নির্বাচনী আচরণ বিধি লঙ্ঘন।
পৌর নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার দাবি জানিয়ে ক্যারামবোর্ড প্রতিকের এ প্রার্থী আরও বলেন, থানার ওসি ও জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) আমার নেতাকর্মী ও সমর্থকদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে হয়রানি ও আমার নির্বাচনী কাজ না করতে ভয়ভীতি দেখাচ্ছে। এসব বিষয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে অভিযোগ করেও কোনো প্রতিকার পাওয়া যাচ্ছে না। এ সময় এমএ কাইয়ুম ভূঁঞা ছাড়াও আরও বক্তব্য রাখেন মো. সবুর ভুইয়া।

বিঃদ্রঃ মানব সংবাদ সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে