ভবিষ্যৎ দুনিয়ার অগ্রদূত এআই ?

রবিবার, ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০২৩,৪:০৭ অপরাহ্ণ
0
49

[ + ফন্ট সাইজ বড় করুন ] /[ - ফন্ট সাইজ ছোট করুন ]

রেজওয়ান হোসেন : একটি কম্পিউটার প্রোগ্রাম বা একটি মেশিনের চিন্তা ও শেখার ক্ষমতাই হল কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বা এআই। কম্পিউটারকে “স্মার্ট” করার চেষ্টা করা এই অধ্যয়নের একটি ক্ষেত্র। মানুষের কমান্ডের সাথে এনকোড না করে এটি নিজেই স্বয়ংক্রিয়ভাবে কাজ করে। “কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা” নামটি জন ম্যাকার্থি ১৯৫৫ সালে নিয়ে এসেছিলেন।

 সাধারণভাবে, “কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা” শব্দের অর্থ মানুষের জ্ঞান অনুকরণ করে এমন একটি প্রোগ্রাম। একটি সিস্টেমের দক্ষতা হিসাবে বাহ্যিক ডেটাকে সঠিকভাবে ব্যাখ্যা করার, এই জাতীয় ডেটা থেকে শেখার এবং সেই শিক্ষাগুলিকে নমনীয় অভিযোজনের মাধ্যমে নির্দিষ্ট লক্ষ্য এবং কাজগুলি অর্জনের জন্য ব্যবহার করার ক্ষমতা হিসাবে আন্দ্রেয়াস ক্যাপলান এবং মাইকেল হেনলেইন কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাকে সংজ্ঞায়িত করেছেন।

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার প্রভাবঃ

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা জীবনের বেশিরভাগ পরিবর্তনের মতো, সমাজে ইতিবাচক এবং নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে কারণ আমরা যে বিশ্বে বাস করি তা প্রতিনিয়তই পরিবর্তন হচ্ছে৷ পরিবর্তনগুলো বেশিরভাগই ভালো হবে আশা করা যায় তবে কারো কারো জন্য এ পরিবর্তন একটি বিশাল প্রতিযোগিতাও হয়ে উঠতে পারে। এখানে যে প্রতিবন্ধকতা রয়েছে যেগুলির মুখোমুখি হতে পারে এবং আমারা সেগুলি কীভাবে মোকাবেলা করব সে সম্পর্কে চিন্তা করা উচিত পাশাপাশি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সমাজে যে ইতিবাচক প্রভাবগুলি ফেলবে সেই দিকও আমাদের বিবেচনায় আনতে হবে।

প্রতিবন্ধকতা মোকাবেলাঃ

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা অবশ্যই আমাদের কর্মশক্তির বিকাশ ঘটাবে। তবে এর কারণে যে সকল শিরোনাম গুলি প্রকাশ পায় তার মধ্যে অন্যতম বিপদজনক শিরোনাম হচ্ছে “মেশিনের কাছে চাকরি হারানো” এর উপর জোর দেয়, কিন্তু মানুষের জন্য আসল প্রতিবন্ধকতা হলো নতুন দায়িত্ব খুঁজে পাওয়া যা পরিচালনার জন্য মানবিক ক্ষমতার একান্ত প্রয়োজন। পিডব্লিউসি এর মতে, ২০১৭-২০৩৭ সালের মধ্যে যুক্তরাজ্যে ৭ মিলিয়ন বিদ্যমান চাকরি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা দ্বারা প্রতিস্থাপিত হবে, তবে এর পরিবর্তে আরো নতুন ৭.২ মিলিয়ন চাকরি তৈরি করা যেতে পারে। এই অনিশ্চয়তা এবং কেউ কীভাবে জীবিকা নির্বাহ করবে সেই প্রতিবন্ধকতাগুলির সাথে তাল মেলাতে মানুষ কঠিন প্রতিযোগিতার সম্মুখীন হতে পারে।

আমাদের সমাজে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার রূপান্তরমূলক প্রভাব সুদূরপ্রসারী অর্থনৈতিক, আইনি, রাজনৈতিক এবং নিয়ন্ত্রক প্রভাব ফেলবে যার জন্য আমাদের আলোচনা এবং প্রস্তুতি নেওয়া দরকার। একটি স্বায়ত্তশাসিত গাড়ি পথচারীকে আঘাত করলে কে দোষী তা নির্ধারণ করা বা বিশ্বব্যাপী স্বায়ত্তশাসিত অস্ত্রের প্রতিযোগিতা কীভাবে পরিচালনা করা যায় তা সম্মুখীন হওয়া প্রতিবন্ধকতাগুলির কয়েকটি উদাহরণ মাত্র।

মেশিন কি অতি বুদ্ধিমান হয়ে উঠবে এবং মানুষ অবশেষে নিয়ন্ত্রণ হারাবে? এই দৃশ্যটি কতটা সম্ভব হবে তা নিয়ে বিতর্ক থাকলেও আমরা জানি যে যখন নতুন প্রযুক্তি চালু করা হয় তখন সর্বদা অপ্রত্যাশিত পরিণতি হয়। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সেই অনিচ্ছাকৃত ফলাফলগুলি সম্ভবত আমাদের সকলকে প্রতিযোগিতা করবে।

আরেকটি সমস্যা নিশ্চিত করা হচ্ছে যে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা যে কাজটি করার জন্য তৈরী করা হয়েছিল সেটি করতে এতটা দক্ষ হয়ে উঠবে না যাতে এটি নৈতিক বা আইনি সীমানা অতিক্রম করে। যদিও কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা এর মূল উদ্দেশ্য এবং লক্ষ্য হল মানবতার উপকার করা, যদি এটি একটি ধ্বংসাত্মক লক্ষ্য অর্জনের পথ বেছে নেয় তবে এটি সমাজকে নেতিবাচকভাবে প্রভাবিত করবে। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার অ্যালগরিদমগুলি অবশ্যই মানুষের অত্যধিক লক্ষ্যগুলির সাথে সারিবদ্ধ করার জন্য তৈরি করা উচিত।

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা অ্যালগরিদম ডেটা দ্বারা চালিত হয়। যেহেতু প্রতিটি ব্যক্তির দিনের প্রতি এক মিনিটে আরও বেশি বেশি ডেটা সংগ্রহ করা হয়, আমাদের গোপনীয়তার সাথে আপস করা হয়। যদি ব্যবসা এবং সরকারগুলি আপনার সম্পর্কে জড়ো করা বুদ্ধিমত্তার উপর ভিত্তি করে সিদ্ধান্ত নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় যেমন বিভিন্ন দেশ তার সামাজিক ঋণ ব্যবস্থা নিয়ে করছে, তাহলে এটি সামাজিক নিপীড়নে পরিণত হতে পারে।

সমাজের উপর কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ইতিবাচক প্রভাবঃ

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যাপকভাবে আমাদের কর্মক্ষেত্রের দক্ষতা উন্নত করতে পারে এবং মানুষ যে কাজ করতে পারে তা পরিমাণ বৃদ্ধি করতে পারে। যখন কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা পুনরাবৃত্তিমূলক বা বিপজ্জনক কাজগুলি গ্রহণ করে, তখন এটি মানব কর্মশক্তিকে সে সকল কাজ করার জন্য মুক্ত করে যেসকল কাজে তারা পারদর্শী যেমন সৃজনশীলতা এবং অন্যদের মধ্যে সহানুভূতিশীলতা সৃষ্টি। যদি লোকেরা এমন কাজ করে যা তাদের জন্য আরও আকর্ষক, তবে এটি সুখ এবং কাজের সন্তুষ্টি বাড়াতে পারে।

ভাল পর্যবেক্ষণ এবং ডায়াগনস্টিক ক্ষমতার সাথে, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যাপকভাবে স্বাস্থ্যসেবাকে প্রভাবিত করতে পারে। স্বাস্থ্যসেবা সুবিধা এবং চিকিৎসা সংস্থাগুলির ক্রিয়াকলাপ উন্নত করে, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা অপারেটিং খরচ কমাতে পারে এবং অর্থ সাশ্রয় করতে পারে। ম্যাককিন্সির একটি অনুমান ভবিষ্যদ্বাণী করে যে বড় ডেটা বার্ষিক ১০০ বিলিয়ন ডলার পর্যন্ত ওষুধ এবং ফার্মা সাশ্রয় করতে পারে। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার প্রভাব প্রকৃতভাবে রোগীদের যত্নে লক্ষ্য করা যাবে। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সম্ভাব্য ব্যক্তিগত চিকিৎসা পরিকল্পনা এবং ওষুধের ব্যবহার সেইসাথে চিকিৎসা সেবা প্রদানকারীকে রোগীর ব্যপারে আরও তথ্য প্রদানের মাধ্যমে অভাবনীয় সেবা প্রদান সম্ভব করতে পারে।

আমাদের সমাজ কেবলমাত্র স্বায়ত্তশাসিত পরিবহন এবং কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রবর্তনের মাধ্যমে অগণিত ঘন্টার উৎপাদনশীলতা অর্জন করবে যা আমাদের যানজটের সমস্যাগুলিকে নিরসন করবে এবং আমাদের চাকরির সময় ও উৎপাদনশীলতার উন্নত করবে। চাপযুক্ত যাতায়াত থেকে মুক্ত হয়ে, মানুষ অন্যান্য বিভিন্ন উপায়ে তাদের সময় কাটাতে সক্ষম হবে।

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সাহায্যে আমরা যেভাবে অপরাধমূলক কার্যকলাপ উন্মোচন এবং অপরাধের সমাধান করতে পারি তা উন্নত করা যাবে। ফেসিয়াল রিকগনিশন প্রযুক্তি আঙুলের ছাপের মতোই সাধারণ হয়ে উঠছে। বিচার ব্যবস্থায় কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা এর ব্যবহার একজন ব্যক্তির গোপনীয়তা অতিক্রম না করে কীভাবে কার্যকরভাবে প্রযুক্তি ব্যবহার করা যায় তা বের করার অনেক সুযোগও উপস্থাপন করে।

যতক্ষণ আমরা দূরবর্তীভাবে বসবাস করতে চাই এবং আধুনিক বিশ্বের সাথে যোগাযোগ করার পরিকল্পনা না করি, আমাদের জীবন কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা দ্বারা উল্লেখযোগ্যভাবে প্রভাবিত হবে না। যদিও প্রযুক্তির নতুন অ্যাপ্লিকেশনগুলি ব্যবহার হওয়ার সাথে সাথে অনেক শেখার অভিজ্ঞতা এবং প্রতিবন্ধকতা মোকাবেলা করতে হবে, প্রত্যাশা করা যায় যে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সাধারণত সমাজে নেতিবাচক প্রভাবের চেয়ে বেশি ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে।

বাংলাদেশে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার অবস্থানঃ

বাংলাদেশ বিশ্বের সবচেয়ে ঘনবসতিপূর্ণ দেশগুলির মধ্যে একটি যার জনসংখ্যা প্রায় ১৬ কোটিরও বেশি। এটি একটি কৃষি প্রধান দেশ, যেখানে উন্নত প্রযুক্তির নতুন তরঙ্গ বিভিন্ন অঞ্চলকে স্পর্শ করেছে এবং নতুন চালনা দিচ্ছে। নতুন প্রযুক্তি বিভিন্ন শিল্প এলাকায়, অটোমেশন এবং নিয়ন্ত্রণে প্রয়োগ করা হচ্ছে। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা শব্দটি খুব সম্প্রতি আইওটি, বিগ ডাটা, ব্লকচেইন ইত্যাদির সাথে বাংলাদেশে খুবই জনপ্রিয় হয়ে উঠবে। আমাদের দেশে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা এর প্রযুক্তিগত বিবর্তন অনেক আগে শুরু হয়েছিল, কিন্তু এর প্রভাব এখন আমাদের দেশে প্রকাশ পাচ্ছে। বাংলাদেশে কিছু নির্দিষ্ট খাত যেমন সেবা, পরিবহন, শিক্ষা, কৃষি, স্বাস্থ্য এবং পরিবেশকে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার কার্যকরী বাস্তবায়নের জন্য চিহ্নিত করা যেতে পারে। সামগ্রিকভাবে, উদাহরণস্বরূপ রাইড-শেয়ারিং, বাংলার জন্য প্রাকৃতিক ভাষা প্রক্রিয়াকরণ (এনএলপি), চ্যাটবট, বুকিং ফ্লাইট এবং হোটেল, রিয়েল টাইম ম্যাপিং ইত্যাদি ব্যবহারে আমরা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রযুক্তির ব্যাপক ব্যবহার দেখতে পাই। বাংলাদেশের ৩৪% তরুণ যারা প্রযুক্তি চালিত; বিদ্যমান কৌশলের সাথে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা এর সফল একীকরণ দেশের ভবিষ্যত উন্নয়নের জন্য একটি বিশাল সম্ভাবনা ধারণ করে।

লেখক : শিক্ষার্থী, তেজগাঁও কলেজ।

বিঃদ্রঃ মানব সংবাদ সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে