বীর মুক্তিযোদ্ধা, কবি, কলামিস্ট ইদরিস আলমের ১৪তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

শুক্রবার, নভেম্বর ৬, ২০২০,১১:৩০ পূর্বাহ্ণ
0
10

[ + ফন্ট সাইজ বড় করুন ] /[ - ফন্ট সাইজ ছোট করুন ]

আজ ৬ই নভেম্বর শুক্রবার বঙ্গবন্ধুর স্নেহধন্য,মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, চট্টগ্রাম শহর আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক, বীর মুক্তিযোদ্ধা,কবি, কলামিস্ট ইদরিস আলমের ১৪তম মৃত্যুবার্ষিকী। মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামীলীগের উদ্যোগে নগরীর মোমিন রোড়,জামাল খাঁনস্থ প্রিয়া কমিউনিটি সেন্টারে শুক্রবার বিকাল ৩টায় এক স্মরণ সভা আয়োজন করা হয়েছে। উক্ত স্মরণ সভায় চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামীলীগের সকল স্তরের নেতা কর্মীরা উপস্থিত থাকবেন।

উল্লেখ্য, সদাহাস্যোজ্জ্বল, অমায়িক, উদার, স্পষ্টভাষী, অসাম্প্রদায়িক, মানবতাবাদী ও প্রগতিশীল ঘরানার মানুষটি গত ৬ নভেম্বর ২০০৬ সালে ৬৩ বছর বয়সে সবাইকে ফাঁকি দিয়ে অদেখা ভুবনের উদ্দেশ্যে পাড়ি দেন।

চট্টগ্রামের আওয়ামীলীগের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা ও কিংবদন্তি নেতা জহুর আহমদ চৌধুরীর হাত ধরে তিনি রাজনীতিতে পদার্পন করেন। ইদরিস আলমকে নিজের ছেলের মতো স্নেহ করতেন জহুর আহমদ চৌধুরী। বলা হয় তৎকালীন সিটি আওয়ামীলীগের পার্টি অফিস ২৩ রেস্ট হাউস, স্টেশন রোড ছিল ইদরিস আলমের স্থায়ী ঠিকানা। রাত দিন পড়ে থাকতেন সেখানে। স্বাধীনতার উত্তাল দিনগুলির স্বাক্ষী ছিলেন ইদরিস আলম। ঐ সময়ে ঘটনাবহুল চট্টগ্রামের প্রতিটি আন্দোলনের পরতে পরতে জড়িয়ে ছিলেন ইদরিস আলম। বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে তিনি মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। তিনি ছিলেন বঙ্গবন্ধুর খুবই কাছের মানুষ। তাকে দেওয়া বঙ্গবন্ধুর চিঠি ও দুর্লভ ছবি রক্ষিত আছে তাঁর নিজস্ব লাইব্রেরিতে।

রাজনীতির মেঠো পথে তিনি সুবক্তা হিসেবে খ্যাত ছিলেন। অনলবর্ষী বক্তা হিসেবে চাটগাঁয় তিনি ছিলেন অদ্বিতীয়। ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর তাঁকে দীর্ঘদিন কারাবরণ করতে হয়েছিল। এর আগে তিনি একাধারে সিটি কলেজ ছাত্র সংসদের সাধারণ সম্পাদক (১৯৭০-১৯৭১), সিটি আওয়ামীলীগের (ছাত্র অবস্থায়) দপ্তর ও প্রচার সম্পাদক এবং স্বাধীনতা উত্তর শহর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক পদে অধিষ্টিত ছিলেন।

বহুমাত্রিক জ্ঞান অন্বেষণে ব্যাপৃত ছিলেন ইদরিস আলম। নিত্যসঙ্গী বইয়ের জগতে বুঁদ হয়ে থাকতেন বেশির ভাগ সময়। পাশাপাশি তিনি নিয়মিত কলাম লিখতেন চট্টগ্রামের জনপ্রিয় পত্রিকাগুলোতে।
চট্টগ্রাম নগরীর সবচেয়ে অবহেলিত, অনুন্নত ও শিক্ষাবিমুখ এলাকা ছিল বৃহত্তর বাকলিয়া। এলাকাটিতে শিক্ষার আলো জ্বালানোর লক্ষ্যে তিনি স্বাধীনতা উত্তর সময়ে চর চাকতাই প্রাথমিক বিদ্যালয়, চর চাকতাই বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় এবং পরবর্তীতে ইউসেফ স্কুল প্রতিষ্ঠা করেন।

কবি, কলামিস্ট ও আলোড়ন সৃষ্টিকারী রাজনীতিবিদ ইদরিস আলম ১৯৪৪ সালের ৩১ ডিসেম্বর চট্টগ্রামের দক্ষিণ বাকলিয়ায় জন্মগ্রহণ করেন। প্রাইমারীতে অধ্যায়নরত অবস্থায় সক্রিয় রাজনীতির সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে পড়েন। তাঁর রাজনৈতিক জীবন খুবই বর্ণিল। তিনি ছিলেন ষাট দশকের তুখোড় ছাত্রনেতা।

বিঃদ্রঃ মানব সংবাদ সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে