বাজেট ঘোষণা দুপুরে

বৃহস্পতিবার, জুন ১১, ২০২০,৬:৫৮ পূর্বাহ্ণ
0
6

[ + ফন্ট সাইজ বড় করুন ] /[ - ফন্ট সাইজ ছোট করুন ]

করোনা দুর্যোগে পড়ে দেশের অর্থনীতি টালমাটাল। একের পর এক ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। সবচেয়ে খারাপ অবস্থায় আছে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পগুলো। অনেকেই চাকরি হারিয়েছে। চাকরি হারাতে পারে দেড় কোটি মানুষ।

নিম্নমধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্তদের সঞ্চয় প্রায় শেষ। প্রান্তিক মানুষ খাবারের জন্য দ্বারে দ্বারে ঘুরছে। এমন দুর্যোগের মধ্যে ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষের লক্ষ্য একটিই-টিকে থাকা। আজ বৃহস্পতিবার আগামী অর্থবছরের (২০২০-২১) বাজেট ঘোষণা করা হচ্ছে এই প্রেক্ষাপটে।

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল কী ধরনের বাজেট ঘোষণা দিতে যাচ্ছেন, করোনাভাইরাস কিভাবে মোকাবেলা করা হবে, ভঙ্গুর স্বাস্থ্য খাতই বা উদ্ধারের পরিকল্পনা কী, তা জানতে সবার চোখ থাকবে বাজেটে। সাধারণ মানুষ জানতে চায় আর কত দিন বেকার থাকতে হবে? সরকার তাদের জন্য বাজেটে কী রাখছে? মধ্যবিত্তরা আবার সঞ্চয় করতে পারবে কি না, তা জানতে চায়।

ব্যবসায়ীরা জানতে চান তাঁদের কোনো প্রণোদনা দেওয়া হচ্ছে কি না। বাজেটে তাঁদের আকাঙ্ক্ষা পূরণ হবে কি না। এসব আকাঙ্ক্ষা পূরণের চাপ নিয়ে জাতীয় সংসদে ‘অর্থনৈতিক উত্তরণ ও ভবিষ্যৎ পথপরিক্রমা’ শিরোনামের দেশের ৪৯তম বাজেট ঘোষণা করবেন অর্থমন্ত্রী।

করোনা পরিস্থিতিতে দেশের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো সবচেয়ে কমসংখ্যক সংসদ সদস্যের উপস্থিতিতে বাজেট ঘোষণা করা হবে। সবাইকে বাধ্যতামূলকভাবে মাস্ক ও হ্যান্ড গ্লাভস পরতে হবে। স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে একটি করে আসন ফাঁকা রেখে আসনবিন্যাস করা হয়েছে। বাজেট অধিবেশনে উপস্থিত থাকবেন না কোনো সাংবাদিক কিংবা বিশিষ্টজন।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা গাজী তৌহিদুল ইসলাম জানান, অর্থমন্ত্রী আজ দুপুর ১২টার দিকে জাতীয় সংসদ ভবনে যাবেন। দুপুরেই মন্ত্রিসভার বিশেষ বৈঠকে নতুন অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট অনুমোদন করা হবে। সংসদ নেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে ওই বৈঠকে সীমিত সংখ্যক মন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানানো হবে।

প্রতিবারের মতো এবারও হবে বাজেটোত্তর সংবাদ সম্মেলন। তবে এবার সরাসরি নয়, অর্থমন্ত্রী তাঁর পরিকল্পনা কমিশনের কার্যালয় থেকে অনলাইনের মাধ্যমে বাজেট সম্পর্কিত বক্তব্য তুলে ধরবেন এবং সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেবেন।

অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, এবারের বাজেটে সংগত কারণেই সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে স্বাস্থ্য খাতে। পাশাপাশি কৃষি, খাদ্য উৎপাদন ও ব্যবস্থাপনা এবং কর্মসংস্থানকে অধিক গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। আগামী অর্থবছরে নানা ধরনের কৃষি ও খাদ্যবান্ধব কর্মসূচি, সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতা সম্প্রসারণ, ক্ষতিগ্রস্ত শিল্প, ব্যবসা-বাণিজ্য পুনরুদ্ধারসহ কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে বাজেটে বিভিন্ন প্রস্তাব থাকছে।

বিঃদ্রঃ মানব সংবাদ সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে