বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ একসূত্রে গাঁথা: নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী

মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ১৫, ২০২০,১:৪৩ অপরাহ্ণ
0
23

[ + ফন্ট সাইজ বড় করুন ] /[ - ফন্ট সাইজ ছোট করুন ]

          নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, ইসলামের নামে যারা বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যের বিরুদ্ধে কথা বলে তারা রাজনৈতিকভাবে পরাজিত হয়ে ধর্মের আশ্রয় নিয়েছে। আজকে যারা ইসলামের নামে ভাস্কর্য নিয়ে কথা বলে; ১৯৭১ সালে তারাই বলেছিল, বাংলাদেশ স্বাধীন হলে এই দেশটা ভারত হয়ে যাবে।

          প্রতিমন্ত্রী গতকাল দিনাজপুর শিল্পকলা একাডেমীর অডিটোরিয়ামে দিনাজপুর মুক্ত দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

          প্রতিমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু অমর,  বঙ্গবন্ধু একটি আদর্শ, বঙ্গবন্ধু একটি  দেশের নাম। স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের অপর নাম বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তিনি বলেন, ইতিহাস পাল্টানো যাবে না, ইতিহাস পাল্টানোর কোনো সুযোগ নেই। ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যা করার পরে জিয়া, এরশাদ, খালেদা জিয়ারা অনেকভাবে  চেষ্টা করেছে ইতিহাসকে পাল্টে দেওয়ার জন্যে, কিন্তু পারেনি। বঙ্গবন্ধুর নাম মুছে ফেলা যাবে না, কারণ বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশকে আলাদা করা যায় না। বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ একসূত্রে গাঁথা।

          খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ১৪ ডিসেম্বর দিনাজপুর মুক্ত হয়েছে। আমাদের বাংলাদেশ স্বাধীন ও মুক্ত হয়েছে ১৬ ডিসেম্বর। মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার ইতিহাস এখানেই গেটলক। এরপর আর কোনো ইতিহাস নেই। ১৬ ডিসেম্বরের পর যারা ইতিহাস রচনা করতে চায় তারা ইতিহাস বিকৃত করতে চায়, ইতিহাসকে ভিন্ন ধারায় নিতে চায়।

          দিনাজপুর মুক্ত দিবস উদ্‌যাপন পরিষদের সভাপতি আবুল কালাম আজাদের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দিনাজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল, সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট জাকিয়া তাবাসসুম জুঁই, জেলা প্রশাসক মাহমুদুল আলম, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আজিজুল ইমাম চৌধুরী, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আসলাম উদ্দীন, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফারুকুজ্জামান চৌধুরী মাইকেল, দিনাজপুর মুক্ত দিবস উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ফরহাদ আহমেদ প্রমুখ।

বিঃদ্রঃ মানব সংবাদ সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে