বঙ্গবন্ধুর ৭মার্চের ভাষণ : ময়মনসিংহ সাহিত্য সংসদের বিশেষ বীক্ষণ আসর

রবিবার, মার্চ ৭, ২০২১,১:২৩ অপরাহ্ণ
0
19

[ + ফন্ট সাইজ বড় করুন ] /[ - ফন্ট সাইজ ছোট করুন ]

নিজস্ব সংবাদদাতা : “ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ,জাতীয় দিবস” উপলক্ষে ময়মনসিংহ সাহিত্য সংসদ গত শুক্রবার ৫ মার্চ ২০২১ তারিখে কবিতা পাঠচক্র কর্মসূচির আওতায় বীক্ষণ আসর ১৯৩০-এ আলোচনার বিষয়বস্তু নির্ধারণ করে ” বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণঃএক অগ্নিঝরা কবিতা”। আলোচনা সকাল ১০.৪৫ টায় শহরের কাচারি ঘাট সংলগ্ন ময়মনসিংহ সাহিত্য সংসদের স্থায়ী মঞ্চে শুরু হয়ে দুপুর ১৩.০০ ঘটিকায় সমাপ্ত হয়।
উক্ত আলোচনা আসরে মূল আলোচক ছিলেন এডভোকেট নজরুল ইসলাম চুন্নু,সহ-সভাপতি, জেলা আইনজীবী সমিতি, ময়মনসিংহ। আলোচনায় আরও অংশ গ্রহণ করেন বাচিক কথা শিল্পী কবি ও সংগঠক সজল কোরায়শী।
আলোচকবৃন্দ অত্যন্ত আন্তরিকতা ও একাগ্রতা নিয়ে আজ হতে পঞ্চাশ বছর আগে অর্থাৎ ১৯৭১ সনের ৭ই মার্চ রেসকোর্স ময়দানে লক্ষ লক্ষ লোকের জনসমুদ্রে বঙ্গবন্ধু ১৮ মিনিটের অলিখিত অগ্নিঝরা ভাষণে কৌশলে পাক হানাদার বাহিনীর হাত হতে মুক্ত করতে স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় উজ্জীবিত মুক্তিযুদ্ধের যে ডাক দিয়েছিলেন তা শুধু এখন বাংলাদেশের নিপীড়িত জনগণের সম্পদ নয়, এই ভাষণ সমগ্র বিশ্বের শোষিত নির্যাতিত মানুষের সম্পদ। আর তাই অনেক দেরিতে হলেও সুদীর্ঘ ৪৬ বছর পর বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণকে জাতিসংঘ “বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্য ” হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে যা আরও আগে প্রাপ্য ছিল।
বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণকে আমেরিকার Newsweek পত্রিকা “A poet of politics” হিসেবে আখ্যায়িত করেছে। তাছাড়া বিশ্বের ক্ষমতাশালী নেতৃবৃন্দ এই ঐতিহাসিক ভাষণটিকে বিভিন্ন ভাবে,বিভিন্ন প্রশংসায় অভিহিত করেছেন যা বর্তমান ও আগামী প্রজন্মের জানা একান্ত প্রয়োজন বলে আলোচকবৃন্দ আলোকপাত করেন।

উক্ত আলোচনা অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কবি, লেখক ও কথাশিল্পী আমজাদ দোলন।তিনিও তার বক্তব্যে প্রায় অনুরূপ অভিমত ব্যক্ত করেন।এ সময় মঞ্চে আরো উপস্থিত ছিলেন ময়মনসিংহ সাহিত্য সংসদের সভাপতি কবি আনোয়ারা সুলতানা।
প্রথম পর্বের আলোচনা অনুষ্ঠানে সঞ্চালকের দায়িত্ব পালন করেন বীক্ষণ-এর যুগ্ম আহবায়ক, উপস্থাপক ও বিশিষ্ট আবৃত্তিকার আমজাদ শ্রাবণ।
দ্বিতীয় পর্বের স্বরচিত ও অন্য কবির কবিতা পাঠের আসরে কবিতা আবৃত্তি করেন কবি আসাদ, নাজমা মমতাজ, কবি আনোয়ারা সুলতানা, কাঙাল শাহীনসহ আরও অনেকে। তাছাড়াও দর্শক শ্রোতা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পদকপ্রাপ্ত কৃষিবিদ সাংবাদিক, কবি, প্রাবন্ধিক ও অবসরপ্রাপ্ত উপপরিচালক (বীজ প্রত্যয়ন) এবং বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পদকপ্রাপ্ত পরিষদ,বাংলাদেশ -এর সিনিয়র-সহসভাপতি কৃষিবিদ শেখ মোঃ মুজাহিদ নোমানী, ছড়াকার মোঃ মাসুদসহ অন্যান্য সুধীবৃন্দ।
দ্বিতীয় পর্বের কবিতা পাঠের আসর সঞ্চালন করেন আলোচক ও প্রাবন্ধিক বীর মুক্তিযোদ্ধা বিমল পাল।

বিঃদ্রঃ মানব সংবাদ সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে