প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে স্থগিত হলো ডিসি সম্মেলন

বুধবার, ডিসেম্বর ২৩, ২০২০,৩:২২ অপরাহ্ণ
0
14

[ + ফন্ট সাইজ বড় করুন ] /[ - ফন্ট সাইজ ছোট করুন ]

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ডিসি সম্মেলন স্থগিত করতে নির্দেশ দিয়েছেন। আগামী ৫, ৬ ও ৭ জানুয়ারি ২০২০ সালের ডিসি সম্মেলন অনুষ্ঠানের তারিখ নির্ধারিত ছিল। গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় এ তথ্য নিশ্চিত করেন মন্ত্রিপরিষদসচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম। তিনি বলেন, অনিবার্য কারণে ডিসি সম্মেলন স্থগিত করা হয়েছে।

একাধিক ডিসির সঙ্গে কথা বললে সরকারের এ সিদ্ধান্তকে তাঁরা স্বাগত জানিয়েছেন। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অনেক কর্মকর্তাও সন্তোষ প্রকাশ করেছেন। স্থগিত এই ডিসি সম্মেলন কবে নাগাদ হবে তা পরে জানানো হবে। গতকাল মৌখিকভাবে সব ডিসিকে এ সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে দেওয়া হয়েছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে। আজ বুধবার এ বিষয়ে চিঠি দেওয়া হবে।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ও মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের একাধিক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, করোনার দ্বিতীয় ওয়েভের বিষয়ে বিশ্বব্যাপী নানা উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। এ অবস্থায় ডিসিদের নিয়ে সম্মেলন অনুষ্ঠানের বিষয়টি দৃষ্টিকটু দেখায়। তা ছাড়া প্রথম দিকে এবারের ডিসি সম্মেলন না হওয়ার সিদ্ধান্ত থাকায় এসংক্রান্ত কাজও তেমন আগায়নি। পরে হঠাৎ ডিসি সম্মেলনের সিদ্ধান্ত নেওয়ায় সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বিপুল কাজের চাপে পড়ে গিয়েছিলেন। যে কারণে অনেক কিছু গুছিয়ে করা সম্ভব হচ্ছিল না।

প্রতিবছর জেলা প্রশাসকদের সম্মেলন একটি রীতি হয়ে দাঁড়িয়েছে। চলতি বছর করোনার কারণে যথাসময়ে সম্মেলন হয়নি। পরিকল্পনা ছিল ডিসেম্বরে হবে।

কিন্তু করোনার দ্বিতীয় ওয়েভের আশঙ্কায় ডিসেম্বরেও সম্মেলন না করার সিদ্ধান্ত হয়। পরে মন্ত্রিপরিষদ ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের কয়েকজন কর্মকর্তার আগ্রহে আগামী জানুয়ারিতে সম্মেলন আয়োজন করা হয়। প্রধানমন্ত্রীর সম্মতি নিয়ে সম্মেলন আয়োজনের প্রস্তুতি প্রায় সম্পন্ন করার মধ্যেই তা আবার স্থগিত করা হলো।

মাঠ প্রশাসনে নেতৃত্বদানকারী ৬৪ জেলার ডিসি, ৮০ জনের মতো সচিব, ৮ বিভাগীয় কমিশনার এবং সব মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, উপমন্ত্রীরা ডিসি সম্মেলনে অংশ নিয়ে থাকেন। রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ডিসিদের বিশেষ সাক্ষাৎ ও অধিবেশনের সুযোগ থাকে। তিন থেকে পাঁচ দিনের এই সম্মেলন সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিবছর জুলাই মাসে ডিসি সম্মেলন হয়ে থাকে। এবার করোনার কারণে জুলাই মাসে তা অনুষ্ঠিত হয়নি।

ডিসি সম্মেলনে মাঠ প্রশাসনের সঙ্গে কেন্দ্রীয় নীতিনির্ধারকদের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে প্রস্তাব, আলোচনা ও সিদ্ধান্ত হয়। এ সময় সব জেলার ডিসিরা প্রতিদিন সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত টানা বৈঠক করেন সচিবালয়ে মন্ত্রিসভা কক্ষে। এসব বৈঠকে ৫৮টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের মন্ত্রী ও সচিবরা পর্যায়ক্রমে উপস্থিত থাকেন। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলো এবং ডিসিরা বিদ্যমান কার্যক্রমের বিষয়ে কী ধরনের সমস্যা বা সুবিধা হচ্ছে, প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রে আরো কী করা যায়, সেসব বিষয়ে দুই পক্ষের মতামত নিয়ে আলোচনার ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

বিঃদ্রঃ মানব সংবাদ সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে