প্রচলিত শিক্ষায় কর্মসংস্থানের সুযোগ ক্রমেই সংকোচিত হয়ে আসছে

রবিবার, জানুয়ারি ৩১, ২০২১,২:০১ অপরাহ্ণ
0
18

[ + ফন্ট সাইজ বড় করুন ] /[ - ফন্ট সাইজ ছোট করুন ]

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্র্রী মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, পরিবর্তনের ধারাবাহিকতায় প্রচলিত শিক্ষায় কর্মসংস্থানের সুযোগ ক্রমেই সংকোচিত হয়ে আসছে। সামনে রোবটিক্স, আইওটি, বিগডাটা, ব্লকচেইন ইত্যাদি নতুন প্রযুক্তি প্রসারের ফলে আগামী দিনগুলোতে প্রচলিত ধারার শিক্ষায় কর্মসংস্থানের চ্যালেঞ্জ আরো বাড়বে। চতুর্থ শিল্প বিপ্লব যুগের প্রযুক্তির প্রসারের ফলে শতকরা ৪০ ভাগ প্রচলিত পেশা বিলুপ্ত হয়ে যাবে। প্রযুক্তির বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় শিক্ষার ডিজিটাল রূপান্তর অপরিহার্য বলে তিনি উল্লেখ করেন।

          মন্ত্রী নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় আয়োজিত মার্কেটিং এন্ড ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস বিষয়ক আয়োজিত ওয়েবিনার অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

          অনুষ্ঠানে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বোর্ড অভ্ ট্রাস্টির চেয়ারম্যান এম এ কাশেম, উপাচার্য প্রফেসর আতিকুল আলম, স্যামসন বাংলাদেশ লিমিটেডের এমডি ওয়াং সান চু প্রমুখ বক্তৃতা করেন।

          ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী বর্তমান প্রজন্মকে অত্যন্ত মেধাবী হিসেবে আখ্যায়িত করে বলেন, শিক্ষা ব্যবস্থার ডিজিটাইজেশন হওয়া উচিত এবং এর শুরুটা প্রাথমিক বিদ্যালয় স্তর থেকে হতে হবে। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়সমূহে প্রচলিত বিষয়ের পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের ডিজিটাল যুগের উপযোগী দক্ষতা অর্জন করার প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

          কম্পিউটারে বাংলা ভাষার উদ্ভাবক মোস্তাফা জব্বার বলেন, চতুর্থ শিল্প বিপ্লব ইউরোপ আমেরিকাসহ উন্নত বিশ্বে মানুষের বিদ্যমান ঘাটতি মেটাবে কিন্তু জনবহুল দেশ হিসেবে আমাদের জন্য তার চিত্রটা হবে বিপরীত। আমাদের মানুষ আছে, তারা যন্ত্র বানাবে এবং যন্ত্রের ব্যবহার শিখবে। কোন প্রযুক্তি মানুষের মেধা ও সৃজনশীলতার স্থান কখনো দখল করতে পারবে না বলে তিনি তার দৃঢ় বিশ্বাস ব্যক্ত করেন।

          অনুষ্ঠানে বক্তারা শিক্ষার ডিজিটাল রূপান্তরকে সময়ের দাবি হিসেবে তুলে ধরে মতামত ব্যক্ত করেন।

বিঃদ্রঃ মানব সংবাদ সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে