নোবিপ্রবিতে বিশ্ব খাদ্য দিবস পালিত

শনিবার, অক্টোবর ১৭, ২০২০,৮:১৬ অপরাহ্ণ
0
17

[ + ফন্ট সাইজ বড় করুন ] /[ - ফন্ট সাইজ ছোট করুন ]

নোবিপ্রবি প্রতিনিধি: নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (নোবিপ্রবি) বিশ্ব খাদ্য দিবস পালিত হয়েছে। খাদ্য প্রযুক্তি ও পুষ্টি বিজ্ঞান বিভাগের উদ্যোগে এক ভার্চুয়াল  অনুষ্ঠানের মাধ্যমে দিবসটি আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ দিদার-উল-আলম। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান অনুষদের ডিন, ড. মোহাম্মাদ সেলিম হোসেন এবং নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশববিদ্যালয়ের কোভিড-১৯ পরীক্ষা ল্যাবের প্রধান এবং মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের চেয়ারম্যান ড. ফিরোজ আহমেদ। অতিথি বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ফলিত পুষ্টি গবেষণা ও প্রযুক্তি ইন্সটিটিউট (বারটান) এর নোয়াখালী আঞ্চলিক কার্যালয়ের ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা এবং অফিস প্রধান ড. মোঃ জহির উল্লাহ এবং বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচী(ডব্লিউ এফ পি) বাংলাদেশের জেন্ডার এন্ড ইনক্লুশন ইন ফুড আন্ড নিউট্রিশন সিকিউরিটির প্রধান রিমু বৈদ্য।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন উক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের খাদ্য প্রযুক্তি এবং পুষ্টি বিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারমেন ও সহকারী অধ্যাপক মোঃ আব্দুল্লাহ আল মামুন,  উক্ত বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. তানজিনা রহমান, সহকারী অধ্যাপক মৌমিতা দে, সহকারী অধ্যাপক সুস্মিতা ঘোষ, সহকারী অধ্যাপক রাহানুর আলম, সহকারী অধ্যাপক উম্মে হালিমা, প্রভাষক সৈয়দা সায়মা আলম এবং দেশের বাইরে থেকে যোগ দেন শিক্ষাছুটিতে থাকা সহকারী অধ্যাপক রুহুল কবির এবং সহকারী অধ্যাপক মার্জিয়া সুলতানা। 

চতুর্থ ব্যাচের শিক্ষার্থী মোঃ তাশদীদুল আলম  এর সঞ্চালনায় এবং বিভাগীয় চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুল্লাহ আল মামুনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে সূচনা বক্তব্য রাখেন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. তানজিনা রহমান। এই দিবসকে সামনে রেখে বিভাগের প্রত্যেক ব্যাচ খাদ্য ও পুষ্টির বিভিন্ন বিষয়ের উপর পোস্টার প্রেজেন্টেশন তৈরি করে যা অনুষ্ঠানে একে একে উপস্থাপন করা হয়। এরপর অনুষ্ঠানের অতিথি বক্তা রিমু বৈদ্য তাঁর মূল্যবান বক্তব্য পেশ করেন। তিনি কক্সবাজারে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে খাদ্য সহকারী কর্মসূচী নিয়ে এবং বাংলাদেশে খাদ্য ব্যবস্থা ও প্রতিকারের উপায় সম্পর্কে কথা বলেন। বারটান এর নোয়াখালী আঞ্চলিক কার্যালয়ের ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা এবং অফিস প্রধান ড. মোঃ জহির উল্লাহ আলোচনা করেন ফলিত খাদ্য ও তার বিভিন্ন প্রকার প্রয়োগ সম্পর্কে। তিনি তাঁর বক্তৃতায় আরও যোগ করেন বাংলাদেশে বর্তমান খাদ্য অবস্থা ও ব্যবস্থা নিয়ে। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ বর্তমানে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ।’ 

অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি ড. ফিরোজ আহমেদ তাঁর বক্তব্যে খাদ্যে উপস্থিত বিভিন্ন মাইক্রো নিউট্রিয়েন্টের গুরুত্ব সম্পর্কে অভিহিত করেন। অনুষ্ঠানের আরেক বিশেষ অতিথি ড. মোহাম্মাদ সেলিম হোসেন ২০২০ সালে “বিশ্ব খাদ্য করমসূচী”র নোবেল প্রাইজ প্রাপ্তি এবং এর পিছনের কার্যবিধি নিয়ে আলোচনা করেন। অনুষ্ঠানের এই পর্যায়ে এসে বিশ্ববিদ্যালয় মাননীয় উপাচার্যের কাছে উক্ত বিভাগের পক্ষ থেকে অনুরোধ জানানো হয় নোবিপ্রবির মেডিকেল সেন্টার এ একটি নিউট্রিশন কর্নার খোলার জন্য।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ দিদার-উল-আলম তাঁর বক্তব্যে খাদ্য উৎপাদন ও বন্টন ব্যবস্থা নিয়ে কথা বলেন, সেই সাথে শরীর ও মনকে সুস্থ রাখতে সুষম খাদ্য ও শারীরিক চর্চার বিকল্প নেই এই বিষয়ে আলোকপাত করেন এবং সবাইকে নিয়ে একসাথে বিকশিত হওয়ার আহ্বান জানান, যার জন্য প্রয়োজন ফুড সায়েন্স,ফুড টেকনোলোজি,নিউট্রিন সায়েন্স,জেনেটিক ইনজিনিয়ার,এ্যাগরিকালচারের মত বিভাগের সম্মনিত প্রচেষ্টা এবং বিভাগের শিক্ষার্থী -শিক্ষক দের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ এর জন্য প্রশংসা করেন। 

সবশেষে বিভাগীয় চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুল্লাহ আল মামুনের সমাপনী বক্তব্যের মধ্য দিয়ে উক্ত অনুষ্ঠান শেষ হয়। নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের খাদ্য প্রযুক্তি এবং পুষ্টি বিজ্ঞান বিভাগের সম্মানিত শিক্ষকমন্ডলী ও সকল শিক্ষার্থীদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহনের মাধ্যমে অনুষ্ঠানটি সম্পন্ন হয়।

বিঃদ্রঃ মানব সংবাদ সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে