নির্যাতনের শিকার নারী ও শিশুদের সুচিকিৎসা ও নিরাপত্তা নিশ্চিতের দাবি মহিলা পরিষদের

রবিবার, মে ৩, ২০২০,২:৩৮ অপরাহ্ণ
0
44

[ + ফন্ট সাইজ বড় করুন ] /[ - ফন্ট সাইজ ছোট করুন ]

বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ এক বিবৃতিতে, সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার কুলতলী গ্রামে চার সন্তানের বিধবা জননীকে গণধর্ষণ, বরগুনার তালতলী উপজেলায় সাত বছরের মেয়ে শিশুকে গাছের সঙ্গে বেঁধে মৃত্যুর ভয় দেখিয়ে মাকে গণধর্ষণ এবং নেত্রকোণার বারহাট্টা উপজেলার রায়পুর ইউনিয়নের মান্দাতলা গ্রামের জঙ্গল থেকে হাত, পা ও মুখ বাধাঁ অবস্থায় স্কুল ছাত্রীর মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় গভীর উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করে জড়িতদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনী ব্যবস্থা গ্রহনসহ দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।

বিবৃতিতে তারা বলেন, ০২.০৫.২০২০ ইং তারিখ দৈনিক বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে জানা যায় যে, গত ২৯ এপ্রিল ২০২০ তারিখ বুধবার বিকালে শ্যামনগরের শ্রীফলকাঠি গ্রামে বসবাসরত ওই নারীর মেয়ের বিয়ের জন্য ছেলের অভিভাবকের সাথে কথা বলার অজুহাতে ভাড়াটিয়া মটরসাইকেল চালক (বাবু) এর সহায়তায় কদমতলা এলাকায় যাওয়ার পথিমধ্যে সন্ধ্যা হওয়ার সুযোগে একই এলাকার একটি চিংড়ি ঘেরে আটকে রেখে ঘটক কুলতলী গ্রামের অফেজউদ্দীন গাজীর ছেলে মহসীন হোসেন ও তার চার সহযোগী কৌশলে তাকে ধর্ষণ করে। এলাকার লোকজন ওই নারীর চিৎকার শুনে দ্রুত তারা ঘটনাস্থলে পৌঁছাতেই সফিকুল, মহসীন, বাবু, গোলাম রব্বানী ও হান্নানসহ আরও দুইজন পালিয়ে গেলে পরবর্তীতে নির্যাতনের শিকার নারীকে উদ্ধার করে রাতেই স্থানীয় গ্রাম পুলিশ নজরুল ইসলামের বাড়িতে নিয়ে যায়। পরের দিন দুপুরের দিকে শ্যামনগর থানায় মামলা দায়ের করা হয়।

গত ২৩ এপ্রিল ২০২০ তারিখ পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় শ্বশুরবাড়ি থেকে একমাত্র সন্তানকে নিয়ে পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার ফিরছিলেন ওই মা। এ সময় পাথরঘাটা খেয়া পার হয়ে তালতলীর শুভসন্ধ্যা ঘাট থেকে নিশানবাড়িয়া খেয়াঘাট যাওয়ার জন্য স্থানীয় জহিরুলের মোটরসাইকেলে ওঠলে জহিরুল বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে ওই নারীকে নিয়ে শুভসন্ধ্যা সমুদ্র সৈকতের গহীন জঙ্গলে নিয়ে তার চার বখাটে সহযোগীদের (এমাদুল, নজরুল, সোহাগ, সাইদুল) মুঠোফোনে কল দিয়ে সেখানে নিয়ে এসে ওই নারীর সঙ্গে থাকা তার মেয়েকে গাছের সঙ্গে বেঁধে মেরে ফেলার ভয় দেখিয়ে সবাই মিলে জোরপূর্বক ওই নারীকে ধর্ষণ করলে ওই নারী জ্ঞান হারালে ধর্ষকরা পালিয়ে যায়। নির্যাতনের শিকার নারী গত ৩০ এপ্রিল ২০২০ তারিখ বৃহস্পতিবার রাতে থানায় মামলা করতে গেলে পুলিশ গণধর্ষণের মামলা না নিয়ে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগে মামলা নেয়।

নেত্রকোণার বারহাট্টাউপজেলার লামাপাড়ার গ্রামের আব্দুল মন্নাফের মেয়ে পাইকুড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেনীর ছাত্রী  গত ৩০ এপ্রিল ২০২০ তারিখ বৃহস্পতিবার  সকালে গ্রামের স্কুল শিক্ষক তালেব আলীর কাছে ১০টার দিকে পড়তে গিয়ে সেখান থেকে আর ফিরে না আসায় এর পর থেকে  নিখোঁজ। গত ০১ মে ২০২০ তারিখ শুক্রবার সকালে উপজেলার রায়পুর ইউনিয়নের লামাপাড়ার পাশের গ্রাম মান্দাতলা গ্রামের জঙ্গলে স্থানীয়রা একটি মরদেহ দেখতে পেয়ে পুলিশকে খবর দিলে ফকিরা বাজার তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ হাত, পা ও মুখ বাধাঁ অবস্থায় এক স্কুল ছাত্রীর মরদেহ উদ্ধার করে।

বিবৃতিতে আরো বলেন, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ চার সন্তানের বিধবা জননীকে গণধর্ষণ, সাত বছরের মেয়ে শিশুকে গাছের সঙ্গে বেঁধে মৃত্যুর ভয় দেখিয়ে তার মাকে গণধর্ষণ এবং স্কুল ছাত্রীর হাত, পা ও মুখ বাধাঁ অবস্থায় জঙ্গল থেকে মরদেহ উদ্ধারের লোমহর্ষক ঘটনাসমূহে গভীর উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করছে। ঘটনার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনী ব্যবস্থা গ্রহনসহ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ তদন্ত সাপেক্ষে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিতকরণ, স্কুল ছাত্রীর হত্যার ঘটনা উদ্ঘাটনসহ নির্যা্তনের শিকার নারীদের সুচিকিৎসা ও নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণের দাবি জানাচ্ছে। একইসাথে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের এই সময়ে সারাদেশে এ ধরণের বর্বর ও নৈরাজ্যকর ঘটনা প্রতিরোধে  সরকার, প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছে।একইসাথে ধর্ষণ, ধর্ষণের পর হত্যা, নারী ও শিশু নির্যাতনের ঘটনা প্রতিরোধে সকল সামাজিক শক্তিকে এগিয়ে আসার জন্য আহ্বান জানাচ্ছে।

বিঃদ্রঃ মানব সংবাদ সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে