নাটোর ধর্ষণের শিকার গৃহবধূকে ১ লাখ টাকা জরিমানা করায় মহিলা পরিষদের ক্ষোভ প্রকাশ

বৃহস্পতিবার, জুন ১১, ২০২০,৫:১৩ অপরাহ্ণ
0
40

[ + ফন্ট সাইজ বড় করুন ] /[ - ফন্ট সাইজ ছোট করুন ]

বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ এক বিবৃতিতে নাটোর সদর উপজেলার ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও গ্রাম প্রধানরা বেআইনী সালিশের মাধ্যমে ধর্ষণের শিকার গৃহবধূকে এক লাখ টাকা জরিমানা করার ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

বিবৃতিতে তারা বলেন, গত ১০.০৬.২০২০ ইং তারিখ বিভিন্ন দৈনিক সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদে জানা যায় যে- গত ০৯.০৬.২০২০ ইং তারিখ মঙ্গলবার নাটোর সদর উপজেলার তেবাড়িয়া ইউনিয়নের বালিয়াডাঙ্গা গ্রামে ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও গ্রাম প্রধানরা বেআইনী সালিশের মাধ্যমে ধর্ষণের শিকার গৃহবধূকে এক লাখ টাকা জরিমানা করার ঘটনা ঘটেছে। জানা যায় যে, গত ২৯ মে ২০২০ তারিখ বালিয়াডাঙ্গা গ্রামের ওই গৃহবধূকে ধর্ষণের সময় হাতে-নাতে আটক করে এলাকাবাসী ধর্ষণকারীকে পুলিশে সোপর্দ করলে গত ৩০ মে ২০২০ তারিখ নাটোর সদর থানায় নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ মামলা করলে পুলিশ অভিযুক্তকে জেল হাজতে পাঠায়। পূর্ববর্তী ঘটনার প্রেক্ষিতে ০৯.০৬.২০২০ ইং তারিখ রাতে গ্রামে বেআইনী সালিশ ডেকে নির্যাতনের শিকার গৃহবধূকে অপবাদ দিয়ে এক লাখ টাকা জরিমানা করে ও গৃহবধূর বাবা বেআইনী সালিশে আসতে দেরি করায় তাকে এক হাজার টাকা জরিমানা করে চেয়ারম্যান ওমর আলী প্রধান এবং অন্যান্য গ্রাম প্রধানগণ।

বিবৃতিতে তারা আরো বলেন, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ ঘটনার শিকার গৃহবধূকে বেআইনী সালিশের মাধ্যমে অপবাদ দিয়ে নানাভাবে হয়রানি ও নারীর মর্যদাহানীর ঘটনায় তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করছে। ঘটনার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ তদন্ত সাপেক্ষে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি, ঘটনার শিকার গৃহবধূর ও তার পরিবারের সদস্যদের নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণের দাবি জানাচ্ছে। একইসাথে বেআইনী সালিশ বন্ধে মহামান্য সুপ্রিমকোর্টের রায় বাস্তবায়ন বিষয়ে এবং এ ধরণের ঘটনা প্রতিরোধে সরকার, প্রশাসনের বিশেষ দৃষ্টি আকর্ষণ করছে।

বিঃদ্রঃ মানব সংবাদ সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে