ধানমন্ডির সাত মসজিদ সড়কের বিভাজকের গাছ কাটায় মহিলা পরিষদের তীব্র প্রতিবাদ।

বুধবার, মে ১৭, ২০২৩,৭:১৪ পূর্বাহ্ণ
0
38

[ + ফন্ট সাইজ বড় করুন ] /[ - ফন্ট সাইজ ছোট করুন ]

গত ১৬ মে (মঙ্গলবার) ২০২৩ তারিখে সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে ধানমন্ডি সাতমসজিদ সড়কে সড়ক বিভাজক সম্প্রসারণের নামে কয়েকশত দেশীয় বৃক্ষপ্রজাতি গাছ কাটার প্রতিবাদে মানববন্ধন কর্মসূচি আয়োজন করা হয়েছে। উক্ত মানববন্ধন কর্মসূচিতে সভাপতিত্ব করেন ঢাকা মহানগর কমিটি সভাপতি মাহাতাবুন নেসা।
মানববন্ধন কর্মসূচিতে বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় কমিটির অ্যাডভোকেসি এন্ড লবি পরিচালক জনা গোস্বামী। ঢাকা মহানগর কমিটির পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন সারা আলম সভাপতি শাহজাহানপুর পাড়া শাখা, সৈয়দা রত্না আহ্বায়ক কলাবাগান আহ্বায়ক কমিটি, কানিজ ফাতেমা টগর সাংগঠনিক সম্পাদক , মঞ্জু ধর, সহ-সাধারণ সম্পাদক, রেহানা ইউনুস- সাধারণ সম্পাদক, হোময়ারা খাতুন-সহ- সভাপতি-কেন্দ্রীয় সমাজ কল্যাণ সম্পাদক, প্রস্তাব পাঠ করেন ফেরদৌস জাহান রত্না,অর্থ সম্পাদক।
মানববন্ধন কর্মসূচিতে উপস্থিত বক্তরা বলেন, গাছ হচ্ছে মানব সমাজের জন্য সরাসরি অক্সিজেন। সকলেই জানি এই অক্সিজেনের সামান্যতম কমতি হলে মনুষ্য সমাজ ধ্বংস হয়ে যাবে। এই গাছ আমাদের পরিবেশের কার্বনড্রাই অক্সাইড শোষণ করে থাকে। সিটি করপোরেশন কর্তৃপক্ষ সবকিছু জেনেও পরিবেশকে ধ্বংস করার খেলায় মেতেছেন। ঢাকা শহরে গাছের সংখ্যা এমনিতে কম। মানববন্ধনে বক্তরা জানান, গ্লোবাল ওয়ার্মিং এর প্রভাবে জলবায়ু পরিবর্তন ঘটে। বিশ্ব উষ্ণায়ণের ফলে প্রাকৃতিক দুর্যোগ সংঘটনের হার বহুগুণে বৃদ্ধি পেয়েছে। আমরা দেখতে পাই বিভিন্ন সেমিনারে গ্লোবাল ওয়ার্মিং এর প্রভাব ও প্রতিকারে সরকারি কর্মকর্তারা বিদেশ সফর করেন তবুও নিজ দেশের প্রাকৃতিক পরিবেশ রক্ষায় তাদের ভূমিকা সুদূর প্রসারি নয়। প্রাকৃতিক পরিবেশ ধ্বংসের কারণে তাপমাত্রা বেড়ে যাচ্ছে বৈশ্বিক উষ্ণায়ণ বৃদ্ধি পাচ্ছে। বিশ্বের কোথাও উন্নয়নের জন্য গাছ কাটা হয় না। গাছ রেখে কীভাবে নগরের উন্নয়ন করা যায় সেজন্য পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। কিন্তু ধানমন্ডিতে রাস্তা ও ফুতপাতের উন্নয়নের নামে নির্বিচারে গাছ কেটে ফেলা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন তারা।
শুধু গাছই নয় ইচ্ছে মত নদীও গ্রাস করা হচ্ছে ঐ উন্নয়নের দোহাই দিয়ে।
দায়হীন এই কাজকর্মকে কি উন্নয়ন বলে? আমরা প্রকল্প কর্তৃপক্ষের কাছে প্রশ্ন রাখতে চাই,গাছ কাটলে কেমন করে কার উন্নয়ন হয়। নগর উন্নয়নের নামে দরকারী গাছগুলো কেটে কোথায় কার উন্নতি ঘটছে জনগন ভালো করে তা জানে। বক্তরা আরো বলেন, শহরের পরিবশেকে উত্তপ্ত করার চক্রান্ত এখনই বন্ধ করুন নয়নাভিরাম
প্রাকৃতিক সম্পদ রক্ষা করুন। এখনই গাছ কাটা বন্ধ করুন।
মানববন্ধন কর্মসূচিতে প্রস্তাব পাঠ করেন ফেরদৌস জাহান রত্না অর্থ সম্পাদক ঢাকা মহানগর কমিটি। মানববন্ধনে উপস্থিত সকলে এই প্রস্তাবসমূহের প্রতি একত্মা ঘোষণা করেন।
মানববন্ধন কর্মসূচিতে সভাপতির বক্তব্যে ঢাকা মহানগর কমিটির সভাপতি মাহাতাবুন নেসা বলেন, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ ঢাকা মহানগর শাখার আজকের এই মানববন্ধন থেকে রাজধানীর ধানমন্ডির সাত মসজিদ সড়কের বিভাজকের গাছ কেটে তথা কথিত সৌন্দর্যবর্ধনের তীব্র প্রতিবাদ জানানো হচ্ছে। মহিলা পরিষদ এই আত্মঘাতী পদক্ষেপে ক্ষোভ প্রকাশ করছে এবং পরিবেশ বিধ্বংসী নীতি থেকে সরে আসার দাবি জানাচ্ছে। উপস্থিত সকলকে সংগ্রামী শুভেচ্ছা জানিয়ে মানববন্ধন কর্মসূচির সমাপ্ত ঘোষণা করেন।
মানববন্ধন কর্মসূচির অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন খালেদা ইয়াসমিন কনা, সদস্য ঢাকা মহানগর কমিটি। মানববন্ধন কর্মসূচিতে ৩০ জন অংশগ্রহণ করেন।

বিঃদ্রঃ মানব সংবাদ সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে