চালের এলসি খোলার সময়সীমা ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত বৃদ্ধি

সোমবার, জানুয়ারি ২৫, ২০২১,১২:০১ পূর্বাহ্ণ
0
18

[ + ফন্ট সাইজ বড় করুন ] /[ - ফন্ট সাইজ ছোট করুন ]

বেসরকারিপর্যায়ে চাল আমদানির জন্য বরাদ্দপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান কর্তৃক এলসি খোলার সময়সীমা ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হয়েছে।

          বেসরকারিপর্যায়ে ৩ জানুয়ারি ১০ ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে ১ লাখ ৫ হাজার মেট্রিক টন, ৪ জানুয়ারি ১২ ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে ১ লাখ ৬০ হাজার মেট্রিক টন ৫, জানুয়ারি ৭ ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে ৬৫ হাজার মেট্রিক টন, ৬ জানুয়ারি ৪৯ ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে ১ লাখ ৭৪ হাজার ৫০০ মেট্রিক টন, ১০ জানুয়ারি ৬৪ ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে ১ লাখ ৭১ হাজার ৫ শত মেট্রিক টন, ১০ জানুয়ারি দ্বিতীয় ধাপে ৭২ ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে ১ লাখ ৪১ হাজার মেট্রিক টন চাল, ১৩ জানুয়ারি ৪৩ ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে ১ লাখ ৬ হাজার ৫০০ মেট্রিক টন, ১৭ জানুয়ারি ৬৩ ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে ৯১ হাজার মেট্রিক টন মিলে সর্বমোট ৩২০ ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে ১০ লাখ ১৪ হাজার ৫০০ মেট্রিক টন চাল  আমদানির জন্য উক্ত বরাদ্দসহ অনুমতি প্রদানের জন্য খাদ্য মন্ত্রণালয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়কে সুপারিশ করেছে।

          বরাদ্দপত্র ইস্যুর ৭ দিনের মধ্যে বরাদ্দপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানকে এলসি খুলে এ সংক্রান্ত তথ্য খাদ্যমন্ত্রণালয়কে অবহিত করতে বলা হয়েছে। ৫ হাজার মেট্রিক টন বরাদ্দপ্রাপ্ত ব্যবসায়ীগণকে এলসি খোলার ১০ দিনের মধ্যে ৫০ শতাংশ এবং সর্বমোট ২০ দিনের মধ্যে সমুদয় চাল এবং ১০-১৫ হাজার মেট্রিক টন বরাদ্দপ্রাপ্ত ব্যবসায়ীগণকে এলসি খোলার ১৫ দিনের মধ্যে ৫০ শতাংশ এবং সর্বমোট ৩০ দিনের মধ্যে সমুদয় চাল বাংলাদেশে বাজারজাত করতে খাদ্যমন্ত্রণালয়ের অফিস আদেশে উল্লেখ করা হয়।

          উল্লেখ্য, খাদ্যশস্যের বাজারমূল্যের ঊর্ধ্বগতির প্রবণতারোধ, নিম্নআয়ের জনগোষ্ঠীকে সহায়তা এবং বাজারদর স্থিতিশীল রাখার স্বার্থে বেসরকারিপর্যায়ে চালের আমদানি শুল্ক ৬২.৫০ শতাংশ থেকে কমিয়ে ২৫ শতাংশ নির্ধারণ করেছে সরকার। সে ধারাবাহিকতায় গত বছরের ২৭ ডিসেম্বর বেসরকারিভাবে চাল আমদানি জন্য বৈধ আমদানিকারকগণকে প্রয়োজনীয় সকল কাগজপত্রসহ চলতি বছরের ১০ জানুয়ারির মধ্যে খাদ্যমন্ত্রণালয়ে আবেদন করতে বলা হয়েছিল।

বিঃদ্রঃ মানব সংবাদ সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে