গাইবান্ধায় চাষির শসা চাষে বাজিমাত

রবিবার, মে ২৬, ২০১৯,৯:১৮ পূর্বাহ্ণ
0
64

[ + ফন্ট সাইজ বড় করুন ] /[ - ফন্ট সাইজ ছোট করুন ]

গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর উপজেলার উত্তর হাটবামুনি গ্রামের কৃষক আমিনুল ইসলাম তিন গুণ লাভ পেয়েছেন শসা চাষ করে । পরিকল্পিতভাবে চাষ ও খেতের পরিচর্যা করলে ধানের চেয়ে শসার বেশি ফলন পাওয়া যায়। শুধু আমিনুল নন, সহস্রাধিক কৃষক লাভবান হয়েছেন শসা চাষ করে ।

কৃষক আমিনুল ইসলাম বললেন, ‘পৈতৃকসূত্রে ১৮ শতক জমি পেয়েছি। প্রতিবছর বোরো  চাষ করতাম এই পরিমাণ জমিতে । পাঁচ হাজার টাকা উৎপাদন খরচ পড়ে এই জমিতে বোরো ধানের চাষে । ধান উৎপন্ন হতো ১২ মণ। প্রতি মণ ৬০০ টাকা হিসাবে ধানের মূল্য দাঁড়ায় ৭ হাজার ২০০ টাকা। উৎপাদন খরচ বাদে আয় হতো ২ হাজার ২০০ টাকা। পক্ষান্তরে ওই ১৮ শতক জমিতে শসা চাষ করি কৃষি কর্মকর্তা শাহজাহান মিয়ার পরামর্শে। গত দুই মাসে ৯৫ হাজার টাকার শসা বিক্রি করেছি। আরও ২৫ হাজার টাকার শসা বিক্রি করতে পারব বলে আশা করছি। শসা উৎপাদনে খরচ হয়েছে প্রায় ২০ হাজার টাকা। অর্থাৎ উৎপাদন খরচ বাদে আড়াই মাসে আয় হয় এক লাখ টাকা। অথচ একই জমিতে বোরো চাষে চার মাসে আয় হয় ২ হাজার ২০০ টাকা।’ তিনি আরও বলেন, ধানের চেয়ে শসা চাষে লাভ বেশি। ফলন পাওয়া যায় দুই থেকে আড়াই মাসে । পাশাপাশি শসার সঙ্গে সাথি ফসল হিসেবে করলার চাষ করা হয়েছে। শসার পর করলা থেকেও আয় হবে।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ সূত্র জানায়, গাইবান্ধার ৭টি উপজেলায় ১ হাজার ৭৬৩ বিঘা জমিতে শসা চাষ হয়েছে। এর মধ্যে সদর উপজেলায় ৭৫ বিঘা, সাদুল্যাপুরে ৩৭৫ বিঘা, পলাশবাড়ীতে ১৮৮ বিঘা, গোবিন্দগঞ্জে ৫২৫ বিঘা, সুন্দরগঞ্জে ৩৭৫ বিঘা, সাঘাটায় ১৫০ বিঘা এবং ফুলছড়িতে ৭৫ বিঘায় চাষ হয় এই ফসল ।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ সূত্রে জানা গেছে, বোরো ধান রোপণের উপযুক্ত সময় ১৫ ডিসেম্বর থেকে ১৫ জানুয়ারি পর্যন্ত। খেত থেকে পাকা ধান কাটা যায় চার মাস পর । শসা লাগানোর উপযুক্ত সময় ফেব্রুয়ারি থেকে মার্চ পর্যন্ত । শসা তোলা যায় আড়াই মাসে ।

কৃষক আমিনের মতো শসা চাষ করে লাভবান হয়েছেন উত্তর হাটবামুনি গ্রামের আরেক কৃষক মোমিনুল ইসলাম (৪২)। তিনি এক বিঘা জমিতে শসা চাষ করেছেন। উৎপাদন খরচ হয়েছে ৪২ হাজার টাকা। আড়াই মাসে শসা বিক্রি করেছেন ১ লাখ ২৫ হাজার টাকার। মোমিনুল ইসলাম বলেন, ‘শসা চাষ করে অল্প সময়ে বেশি লাভ করা যায়। তাই আগামী বছর দুই বিঘা জমিতে শসা চাষ করব।’

কামারপাড়া ইউনিয়নের মধ্য হাটবামুনি গ্রামের কৃষক মো. আঙ্গুর মিয়া (৪৫) বলেন, ‘এ বছর ৩০ শতক জমিতে শসা চাষ করেছি। উৎপাদন খরচ হয়েছে ৪০ হাজার টাকা। আড়াই মাসে শসা বিক্রি করেছি ১ লাখ ২০ হাজার টাকার। আরও শসা বিক্রি করতে পারব ১০ হাজার টাকার ।’

এসব কৃষককে শসা চাষে উদ্বুদ্ধ করেন সাদুল্যাপুর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা শাহজাহান মিয়া। তিনি বলেন, প্রথমে কৃষকেরা শসা চাষে আগ্রহী ছিলেন না। এক কৃষকের সাফল্য দেখে অনেক কৃষক শসা চাষে উদ্বুদ্ধ হয়েছেন।

শুধু সাদুল্যাপুরেই নয়, শসা চাষে লাভবান হয়েছেন সুন্দরগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণ ধোপাডাঙ্গা গ্রামের বকুল মিয়া। তিনি বলেন, ‘গত বছর ১২ শতক জমিতে শসা চাষ করেছিলাম। লাভ করেছি ৪০ হাজার টাকা। তাই এ বছর ৩২ শতক জমিতে শসা চাষ করেছি। বর্তমান বাজারে শসা কেজি ২৫ টাকায় বেচাকেনা হচ্ছে। এ বছর ১ লাখ ৮০ হাজার টাকার শসা বিক্রি করেছি।’

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপপরিচালক এস এম ফেরদৌস বলেন, শসা চাষ বেশ লাভজনক ফসল। কৃষি বিভাগ থেকে কৃষকদের নানাভাবে সহায়তা দেওয়া হচ্ছে। বিশেষত শসা এমন একটা ফসল, যা সরাসরি জমি থেকে তুলে খাওয়া যায়। তাই শসা চাষের সময় কৃষকেরা যাতে জমিতে কীটনাশক ব্যবহার না করেন, সে জন্য তাঁদের পরামর্শ ও প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে।

বিঃদ্রঃ মানব সংবাদ সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে