কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন কর্তৃক ঢাকায় সিনিয়র কৃষিবিদ সম্মিলন-২০২১ অনুষ্ঠিত

বুধবার, নভেম্বর ১৭, ২০২১,১০:০৯ পূর্বাহ্ণ
0
6

[ + ফন্ট সাইজ বড় করুন ] /[ - ফন্ট সাইজ ছোট করুন ]

নিজস্ব সংবাদদাতা : কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ, ঢাকা মেট্রপলিটন এর আয়োজনে গত ১২ নভেম্বর শুক্রবার সকাল ১০.০০ টা হতে কেআইবি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হলো দিনব্যাপী ” সিনিয়র কৃষিবিদ সম্মিলন ২০২১”। উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আনিসুল হক এমপি, মাননীয় মন্ত্রী, আইন ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়, উদ্বোধক হিসেবে ছিলেন আ.ফ.ম বাহাউদ্দিন নাছিম, মহাসচিব, বঙ্গবন্ধু কৃষিবিদ পরিষদ ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ।
বিশেষ অতিথি হিসেবে যোগদান করেন কৃষিবিদ প্রফেসর ড. শহীদুর রশীদ ভুইয়া, সভাপতি, বাংলাদেশ কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন, এবং কৃষিবিদ মোঃ খায়রুল আলম(প্রিন্স), মহাসচিব, বাংলাদেশ কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন।অপর বিশেষ অতিথি কৃষিবিদ সমীর চন্দ, সভাপতি, বাংলাদেশ কৃষক লীগ অসুস্থতার জন্য অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতে পারেননি।

মঞ্চে আরও উপস্থিত ছিলেন স্বাধীনতা পুরস্কার প্রাপ্ত কাজী পেয়ারার উদ্ভাবক ৯৬ বছর বয়সী প্রতিথযশা গবেষক বর্ষীয়ান কৃষিবিদ ড. কাজী বদরুদ্দোজা চৌধুরী এবং কৃষিবিদ মোঃ মোবারক আলী, কেআইবির সাবেক মহাসচিব ও সাবেক মহা পরিচালক, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর।
উক্ত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কৃষিবিদ মোঃ লিয়াকত আলী, সভাপতি, কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ, ঢাকা মেট্রো পলিটন।
কেআইবি চত্বরে বেলুন উড়িয়ে অনুষ্ঠানের শুভ উদ্বোধন করেন মাননীয় আইন ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক এমপি। কেআইবির পেশ ইমাম মোঃ আবু ইউসুফ-এর কোরান তেলাওয়াতের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠান শুরু হয়।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই স্বাগত বক্তব্য রাখেন ড. মোঃ তাসদিকুর রহমান (সনেট), সাধারণ সম্পাদক, কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ, ঢাকা মেট্রো পলিটন।
সারা বাংলাদেশের প্রায় এক হাজার সিনিয়র কৃষিবিদ উক্ত ” সিনিয়র কৃষিবিদ সম্মিলন ২০২১”-এ স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ করেন এবং অনুষ্ঠানের শুরুতেই উত্তরীয় পড়িয়ে সম্মিলনে আগত সকল সিনিয়র কৃষিবিদদেরকে বরণ করে নেয়া হয়।
কোভিড-১৯ এর মহাসংক্রমণের ফলে গত বছর ” সিনিয়র কৃষিবিদ সম্মিলন ২০২০” আয়োজন করা সম্ভব হয়নি। করোনা পরবর্তী সুদীর্ঘ দুই বছর পরে অনুষ্ঠিত ” সিনিয়র কৃষিবিদ সম্মিলন ২০২১” আনন্দ মুখর পরিবেশে প্রাণের মিলন মেলায় পরিণত হয়।এবারই প্রথম কেআইবি, ঢাকা মেট্রোপলিটন “সিনিয়র কৃষিবিদ সম্মিলন ২০২১” উপলক্ষে ” গুরুজন” নামে একটি আকর্ষণীয় স্বরণিকা প্রকাশ করে।
পবিত্র জুমার নামাজ ও মধ্যাহ্ন ভোজ পরবর্তী দুপুর ২.৩০ টা হতে দ্বিতীয় পর্বের অনুষ্ঠান শুরু করা হয়। সভাপতিত্ব করেন সিনিয়র কৃষিবিদ ড. শরীফুর রহমান (শরীফ)। ২.৪৫ হতে ৩.৩৫ টা পর্যন্ত সিনিয়র কৃষিবিদের মাঝে মতবিনিময় অনুষ্ঠিত হয়। মতবিনিময়কালে শ্রদ্ধেয় সিনিয়র কৃষিবিদবৃন্দের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন যুক্তিযুক্ত প্রস্তাবসমুহ পেশ করেন।
এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য প্রস্তাবসমুহ হচ্ছেঃ
১) শতভাগ পেনশন উত্তোলনকারীদেরকে ১৫ বছরের পরিবর্তে ৮ বা ১০ বছর পর হতে মাসিক পেনশন প্রদান চালু করা হোক।
২) প্রতি তিন বছর পর পর বিদ্যমান জীবনযাত্রার ব্যায় বিবেচনা পূর্বক পেনশন ভাতার হার বা পরিমান পুনঃ নির্ধারনকরণ।
৩) বাংলাদেশ সেনাবাহিনী, বিমান বাহিনী ও নৌ বাহিনীতে ইন্জিনিয়ারিং কোর ও মেডিকেল কোরের ন্যায় কৃষি কোর চালুর প্রস্তাব করা হয়।
৪) কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ-এর তত্বাবধানে সকল কৃষিবিদদের সুচিকিৎসার জন্য একটি বিশেষ কৃষিবিদ হাসপাতাল স্থাপন।
৪) সকল সরকারি বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় পরিচালিত গণ পরিবহন যথা ট্রেন, বাস, বিমান ও নৌপথে পৃথিবীর অন্যান্য দেশের ন্যায় ৫০% হারে ভাড়া প্রদানের সরকারি আদেশ জারি করা।
৫)সকল সরকারি,আধা-সরকারী, স্বায়ত্তশাসিত
এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে সিনিয়র কৃষিবিদদের সন্তানদের জন্য বিশেষ কোটা সংরক্ষণ।
৬) বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে বিশেষ সেবা ও সহযোগিতা প্রাপ্তির লক্ষ্যে মাননীয় কৃষি মন্ত্রী ও কৃষি সচিব মহোদয়ের যৌথ স্বাক্ষরে সিনিয়র কৃষিবিদদেরকে বিশেষ পরিচয় পত্র প্রদান।
৭) কেআইবির বিভিন্ন শাখা, বিভাগ, আবাসিক কক্ষ ও সম্মেলন কক্ষের পরিচিতি ও অবস্থান নির্দেশক সাইনবোর্ড লাগানোসহ উত্থাপিত প্রস্তাবসমুহ বাস্তবায়নে কেআইবির জোর পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য নেতৃবৃন্দের প্রতি আহ্বান জানান হয়।
কৃষিবিদ ইন্সটিটিউট বাংলাদেশ এর সভাপতি কৃষিবিদ প্রফেসর ড.শহীদুর রশীদ ভুইয়া প্রস্তাবসমুহের সারসংক্ষেপ উপস্থাপন করেন এবং কেআইবির পক্ষ হতে প্রস্তাবসমুহ বাস্তবায়নে জোর সুপারিশ সহকারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রেরণ করা হবে বলে তিনি জানান।

অনুষ্ঠান শেষে বিকাল ৪.০০ টা হতে বিকাল ৫.০০টা পর্যন্ত কৃষিবিদ ড.আফজাল হোসেনের আকর্ষণীয় সঞ্চালনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। স্থানীয় পেশাদার শিল্পীদের পাশাপাশি সিনিয়র কৃষিবিদ ড. আশরাফুল আলম রাঙা তার সুরেলা কণ্ঠে একটি রবীন্দ্র সংগীত ও একটি ফোক সংগীত পরিবেশন করে উপস্থিত সিনিয়র কৃষিবিদদের কে মুগ্ধ করেন।
সান্ধ্য সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান শেষে দিনব্যাপী ” সিনিয়র কৃষিবিদ সম্মিলন ২০২১”-এর সমাপ্তি ঘোষণা করেন কৃষিবিদ মোঃ লিয়াকত আলী জুয়েল, সভাপতি, কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ, ঢাকা মেট্রোপলিটন।

বিঃদ্রঃ মানব সংবাদ সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে