কুড়িগ্রামে মেয়েকে শ্বশুরবাড়ির নির্যাতন থেকে বাঁচাতে গিয়ে বাবা নিহত

সোমবার, আগস্ট ৫, ২০১৯,৫:৪২ পূর্বাহ্ণ
0
48

[ + ফন্ট সাইজ বড় করুন ] /[ - ফন্ট সাইজ ছোট করুন ]

কুড়িগ্রামে মেয়েকে শ্বশুরবাড়ির নির্যাতনের হাত থেকে বাঁচাতে গিয়ে হামলার শিকার হয়ে এক বাবা নিহত হয়েছেন । ঘটনার পর থেকেই অভিযুক্তরা পলাতক রয়েছেন । পুলিশ আশ্বাস দিয়েছে আসামিদের গ্রেফতার করে দ্রুত আইনের আওতায় আনার ।
নির্যাতনের হাত থেকে মেয়েকে বাঁচাতে গিয়ে কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলার হতভাগা বাবা জহুর আলী নিজেই লাশ হয়ে ফিরলেন। বাবাকে হারিয়ে মেয়ে মোহসীনা বেগম কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন ।

পাঁচ বছর আগে নাগেশ্বরীর ঝাকুয়াবাড়ি গ্রামের মমিনুলের সঙ্গে পাশের উচাভিটা গ্রামের মোহসীনা বেগমের
বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই নানা অজুহাতে শ্বশুর বাড়ির লোকজন তাকে নির্যাতন করতো । শনিবার সকালে গৃহবধূকে মোহসীনা বেগমকে তারা মারধোর করে। খবর পেয়ে ঘটনার দিন সন্ধ্যায় মেয়েকে আনতে যান বাবা জহুর আলী। এ সময় মেয়ের শ্বশুর বাড়ির লোকজন তাকে ব্যাপক মারধোর করে। এতে তার ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয়। ঘটনাস্থল থেকে নিহতের লাশ উদ্ধার করে সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠায় পুলিশ।

মোহসীনা বেগমের বোন বলেন, তারা খুব অত্যাচার করে
আমার বোনকে । খবর দেয় আমার বাবাকে । বাবা গেলে তাকে মেরে ফেলে।মোহসীনার ভাই বলেন, আমার বোনকে অত্যাচার করে  খবর দেয় বাবাকে। তিনি সেখানে যান একা একাই। তারপরে তাকে মারধর করে। তিনি রাতে মারা যান। আমি বিচার চাই এই হত্যার ।

নাগেশ্বরী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রওশন কবির জানান, এ ঘটনায় মোহসীনা বাদী হয়ে নাগেশ্বরী থানায় শ্বশুর-শাশুড়িসহ ৬ জনকে আসামি করে একটি মামলা করেন। আমরা লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য  প্রেরণ করা হয়েছে
কুড়িগ্রাম সদর হাসপাতালে। গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে আসামিদের ।ঘটনার পর পলাতক রয়েছেন অভিযুক্ত শ্বশুর মোকছেদ আলী ও তার পরিবারের সদস্যরা।

বিঃদ্রঃ মানব সংবাদ সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে