‘করোনায় কেউ না খেয়ে মারা যায়নি ঠিকই কিন্তু থালায় ভাতের পরিমাণ কমে যাচ্ছে’

শুক্রবার, অক্টোবর ২, ২০২০,১১:২৬ পূর্বাহ্ণ
0
45

[ + ফন্ট সাইজ বড় করুন ] /[ - ফন্ট সাইজ ছোট করুন ]

“করোনায় কেউ না খেয়ে মারা যায়নি ঠিকই, কিন্তু থালায় ভাতের পরিমাণ কমে যাচ্ছে। কারণ বাজারে চাল থাকলেও প্রতিদিনই দাম বাড়ছে। চালকলের মালিকেরা সরকারি গুদামে চুক্তিমত চাল দেয়ইনি উপরন্ত হুমকি দিচ্ছে। তাদের জেলে দিলেও চাল দিতে পারবেনা। করোনায় মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়েছে। প্রবাসীরা খালিহাতে দেশে ফিরছে। কিছুদিন পর এদের বাজার দরে চাল কেনা সম্ভব হবে না। অন্যদিকে সরকারি সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হয়নি। গুদামে যে চাল আছে তা দিয়ে কিছু দিনের জন্য প্রয়োজন মেটানো গেলেও, পুরোপুরি সম্ভব হবে না। সুতরাং করোনাকালে অথবা করোনা উত্তরকালো যে মানুষ সৃষ্ট আরেকটি দুর্ভিক্ষাবস্থা সৃষ্টি হবে না সেটা বলা যায় না। তাই দেশের মানুষের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে কঠিন কিছু পদক্ষেপ নিতে হবে।”

গতকাল খাদ্য নিরাপত্তা ও চাল সহ দ্রব্যমূল্যের উর্ধগতিরোধে ওয়ার্কার্স পার্টির খাদ্য মন্ত্রী সমীপে স্মারকলিপি দেয়ার দেশব্যাপী কর্মসূচিতে ঢাকা মহানগর ওয়ার্কার্স পার্টি আয়োজিত সমবেশে অনলাইন ভিডিও কলে পার্টির সভাপতি জননেতা কমরেড রাশেদ খান মেনন এমপি এ কথা বলেন।

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে সকাল ১১টায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন ঢাকা মহানগর কমিটির সভাপতি জননেতা কমরেড আবুল হোসাইন। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, ঢাকা মহানগর কমিটির সাধারণ সম্পাদক কমরেড কিশোর রায়, ঢাকা মহানগর সদস্য কমরেড রফিকুল ইসলাম সুজন, ছাত্রনেতা ফারুক আহমেদ রুবেল সহ নেতৃবৃন্দ।

সমাবেশ শেষে একটি প্রতিনিধি দল খাদ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের মাধ্যমে মাননীয় খাদ্য মন্ত্রীর বরাবর একটি স্মারকলিপি পেশ করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগর সভাপতি কমরেড আবুল হোসাইন, সাধারন সম্পাদক কমরেড কিশোর রায়, মহানগর নেতা কমরেড মামুন মোল্লা প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।

বিঃদ্রঃ মানব সংবাদ সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে