ঈদ উৎযাপন সময়কালীন দেশে নারী ও কন্যাশিশুদের প্রতি বর্বর সহিংসতায় মহিলা পরিষদের ক্ষোভ প্রকাশ

বুধবার, মে ২৭, ২০২০,৫:০৯ অপরাহ্ণ
0
69

[ + ফন্ট সাইজ বড় করুন ] /[ - ফন্ট সাইজ ছোট করুন ]

বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ এক বিবৃতিতে, কোভিড-১৯ সংক্রমনের এই দূর্যোগে ঈদ উৎযাপন সময়কালীন দেশের বিভিন্ন স্থানে নারী ও কন্যাশিশুদের প্রতি বর্বর সহিংসতার ৬টি ঘটনায় গভীর উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।

বিবৃতিতে তারা বলেন, গত ২৬.০৫.২০২০ ইং তারিখ বিভিন্ন দৈনিক সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদে জানা যায় যে-

গত ১৯ মে ২০২০ তারিখ মঙ্গলবার পিরোজপুর জেলার মঠবাড়িয়া উপজেলায় কিশোরীকে শাহাদাত ও তাঁর দুই সহযোগী কিশোরীকে জোরপূর্বক অপহরণকরে পাশের উপজেলার গ্রামের একটি একতলা পাকা বাড়িতে ৬দিন আটকে রেখে শাহাদাত ধর্ষণ করে।

গত ২৪ মে ২০২০ তারিখ রোববার ফেনী জেলার ছাগলনাইয়া উপজেলায় দারোগার হাট এলাকায় শিশুটির পরিবার কেউ বাসায় না থাকায় ওই সকালে প্রতিবেশি শফিক তাকে একা পেয়ে ধর্ষণ করে।

গত ২৪ মে ২০২০ তারিখ রোববার  হিলিতে আদিবাসী পল্লীতে রহমত (৪৫) কর্তৃক তৃতীয় শ্রেণীর শিক্ষার্থীকে হাত-পা বেঁধে ধর্ষণের চেষ্টা।

গত ২৪ মে ২০২০ তারিখ সোমবার রাতে নওগাঁ জেলার সাপাহার উপজেলার হাপানিয়া (দক্ষিণ বেলডাঙ্গা) গ্রামে স্বামীর প্রস্তাবিক অনৈতিক পাষণ্ড স্বামী তার স্ত্রীকে শারীরিক নির্যাতন করে মাথার চুল কেটে ন্যাড়া করে দেওয়ার পর পাষণ্ড স্বামী ও গৃহবধূর শাশুড়ি রাজিয়া বিবি গৃহবধূর মুখে কাপড় গুঁজে দিয়ে মুখ বন্ধ করে গোপনাঙ্গে মরিচের গুঁড়ো প্রবেশ করিয়ে অসহ্য যন্ত্রণা দিয়ে বাড়িতে গৃহবন্দি করে রাখে।

গত ২৪ মে ২০২০ তারিখ সোমবার পাবনা জেলার চাটমোহর উপজেলার গুনাইগাছা ইউনিয়নের চরপাড়া গ্রামে শারীরিক সমস্যা দেখা দেওয়ায় ওই কলেজ ছাত্রী প্রতিবেশী এক কিশোরীকে সঙ্গে এলাকার কবিরাজের বাড়ি যান। কাজ শেষে বাড়ি ফেরার পথে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে বাড়ির অদূরে আগে থেকে ওঁৎ পেতে থাকা শুকুর আলীসহ চারজন তাদের দুজনকে মুখ চেপে ধরে পাশের একটি পাটক্ষেতে নিয়ে ওই কলেজ ছাত্রীর হাত-পা বেঁধে পালাক্রমে ধর্ষণ করে।

শেরপুর জেলার সদর উপজেলার সাপমারী উচ্চবিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রীকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে মনির ও তার তিন সহযোগী বেড়ানোর কথা বলে পাকুরিয়া গ্রামে মনির তার এক বন্ধুর বাড়িতে তাকে ধর্ষণ করে। ওই ছাত্রী অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে রোববার রাতে ঝড়-বৃষ্টির মধ্যে শেরপুর সদর হাসাপাতলের সামনে রেখে পালিয়ে যায়।

বিবৃতিতে তারা আরও বলেন, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ  নারী ও শিশুদের প্রতি ধর্ষণ, গণধর্ষণ, যৌন নিপীড়র এবং পারিবারিক সহিংসতার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ ও তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করছে। ঘটনার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনী ব্যবস্থা গ্রহনসহ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ তদন্ত সাপেক্ষে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি এবং নির্যা্তনের শিকার নারী ও শিশুদের সুচিকিৎসাসহ তাদের ও তাদের পরিবারের সদস্যদের নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণের দাবি জানাচ্ছে। একইসাথে এ ধরনের নৃশংস, বর্বর ঘটনা প্রতিরোধে আশুকার্যকর ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য সরকার, প্রশাসনের বিশেষ দৃষ্টি আকর্ষণ করছে। সেইসাথে ধর্ষণ, গণধর্ষণ, যৌন নিপীড়র, পারিবারিক সহিংসতা এবং নারী ও শিশু নির্যাতনের ঘটনা প্রতিরোধে সকল সামাজিক শক্তিকে এগিয়ে আসার জন্য আহ্বান জানাচ্ছে।

বিঃদ্রঃ মানব সংবাদ সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে