ইবিতে মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে আঞ্চলিক বিতর্ক

সোমবার, ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০২০,৭:৪৬ পূর্বাহ্ণ
0
6

[ + ফন্ট সাইজ বড় করুন ] /[ - ফন্ট সাইজ ছোট করুন ]

ইবি প্রতিনিধি : অমর একুশে ফেব্রুয়ারী ও আন্তর্যাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) আঞ্চলিক রম্য বিতর্ক অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল রবিবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) বিকাল ৪টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিবেটিং সোসাইটি আয়োজনে ক্যাম্পাসের বাংলা মঞ্চে বিতর্কটি অনুষ্ঠিত হয়।

বিতর্কে ‘আমার জেলায়, আমার পেশায়, আমিই সেরা এই বাংলায়’ এই প্রতিপাদ্যে নিজ জেলা ও পেশার পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করে বিতার্কিকরা। এতে বিরিয়ানী ব্যবস্যায়ী হিসেবে পুরান ঢাকার জান্নাতুল ফেরদাউস নীলা, ঘুষখোর কর্মকর্তা হিসেবে নোয়াখালীর আজিজুল হক পিয়াস, রাঁধুনি হিসেবে খুলনার ইরানী, কবিরাজ হিসেবে চাপাইনবাবগঞ্জের মাহাদী হাসান, মেকাপ আর্টিস্ট হিসেবে বরিশালের চাদনী আক্তার, ঘটক হিসেবে বগুড়ার সোহান সাদিক ও শুটকি ব্যবস্যায়ী হিসেবে চট্টগ্রামের শাহেদুল ইসলাম যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করে।

বিতর্কের সভাপতি হিসেবে বিশ^বিদ্যালয় ডিবেটিং সোসাইটির আহবায়ক শাহাদাৎ হোসেন নিশান এবং মডারেটর হিসেবে সদস্য সচিব মুনমুন সুলতানা অন্তরা ও সদস্য আব্দুল্লাহ আল মুনায়েম উপস্থিত ছিলেন। এসময় বিশ^বিদ্যালয়ের ট্রেজারার অধ্যাপক ড. সেলিম তোহা, আইন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আরমিন খাতুন, ল’ এন্ড ল্যান্ড ম্যানেজমেন্ট বিভাগের প্রভাষক শাহিদা আক্তার ও বিলাসী সাহাসহ বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

বিশ্ববিদ্যালয় ডিবেটিং সোসাইটির  আহবায়ক শাহাদাৎ হোসেন নিশান বলেন, একটি জাতির যেমন মাতৃভাষা রয়েছে তেমনি প্রত্যেকটি ব্যক্তির রয়েছে তার নিজস্ব আঞ্চলিক ভাষা। মাতৃভাষার মর্যাদা রক্ষার পাশাপাশি আঞ্চলিক ভাষার প্রতিও শ্রদ্ধা জানানো আামাদের কর্তব্য। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসকে সামনে রেখে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের আঞ্চলিক ভাষার কথা স্মরণ করিয়ে দিতেই আমাদের আজকের এই আয়োজন।

এবিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের লোক-প্রশাসন বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী জামির হোসেন বলেন, এ বিতর্কের মাধ্যমে সারাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলের ইতিহাস-ঐতিহ্য ও নিজস্ব সংস্কৃতি ফুটে উঠেছে। এমন সুন্দর একটা অনুষ্ঠান আমাদের উপহার দেওয়ার জন্য বিশ^বিদ্যালয় ডিবেটিং সোসাইটিকে অনেক ধন্যবাদ।

বিঃদ্রঃ মানব সংবাদ সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে