আর্মি পরিচয়ে ২০ ধর্ষণ, ভিডিও করে অর্থ আদায়

বুধবার, অক্টোবর ৩০, ২০১৯,৫:১৪ পূর্বাহ্ণ
0
16

[ + ফন্ট সাইজ বড় করুন ] /[ - ফন্ট সাইজ ছোট করুন ]

কমপক্ষে ২০টি ধর্ষণ ও সেই দৃশ্য মোবাইল ফোনে ধারণ করে ঘটনার শিকার মেয়েদের পরিবারের কাছ থেকে টাকা আদায় করেছে এক ‘দুর্ধর্ষ’ প্রতারক আশরাফুল মোল্যা (৩৭) ওরফে সুমন আর্মি। সম্প্রতি যশোর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) তাকে গ্রেপ্তার করেছে।

শহরের শংকরপুর থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয় গত সোমবার রাতে। তাঁর কাছে সেনাবাহিনীর চারটি ভুয়া আইডি কার্ড, তিনটি ভুয়া জাতীয় পরিচয়পত্র, সেনাবাহিনীর নেমপ্লেট সংযুক্ত জ্যাকেট, একটি সোয়েটার, ১৩টি সিম কার্ড, একটি মেমোরি কার্ড এবং দুটি মোবাইল ফোনসেট পাওয়া গেছে। আশরাফুল নড়াইল সদর উপজেলার বোড়ামারা গ্রামের আকবর মোল্যার ছেলে।

তাঁর বিরুদ্ধে কমপক্ষে ২০টি ধর্ষণ ও সেই দৃশ্য মোবাইল ফোনে ধারণ করে ঘটনার শিকার মেয়েদের পরিবারের কাছ থেকে টাকা আদায়ের অভিযোগ রয়েছে। যশোরের বাঘারপাড়া থানার একটি মামলায় গ্রেপ্তারের পর পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে আশরাফুলের অপকর্মের সব ফিরিস্তি বেরিয়ে আসে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে জেলা পুলিশ সুপারের সম্মেলনকক্ষে আয়োজিত প্রেস ব্রিফিংয়ে এসব তথ্য জানোনো হয়।

জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার অ্যাডিশনাল এসপি মো. তৌহিদুল ইসলাম প্রেস বিফিংয়ে জানান, আশরাফুল মোল্যা নিজেকে সেনাবাহিনীর কর্মকর্তা পরিচয়ে প্রথমে মেয়েদের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলেন। এরপর কৌশলে তাদের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন ও সেগুলোর ভিডিও করেন। পরে ভুক্তভোগী ও তাদের পরিবারকে ভয়ভীতি দেখিয়ে টাকা আদায় করেন। এভাবে তিনি কমপক্ষে ২০ মেয়ের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক করে তাদের কাছ থেকে টাকা তুলে নিয়েছেন। তাঁর কাছ থেকে উদ্ধার হওয়া মেমোরি কার্ডে বিভিন্ন মেয়ের সঙ্গে তাঁর শারীরিক সম্পর্কের ভিডিও পাওয়া গেছে।

তিনি আরো জানান, যশোরের বাঘারপাড়া থানার নারী ও শিশু নির্যাতন মামলার আসামিকে ধরতে পুলিশের একটি দল শংকরপুর এলাকার জনৈক রওশন আলীর বাড়িতে অভিযান চালায়। এ সময় তারা আশরাফুল ওরফে সুমন আর্মিকে গ্রেপ্তার করেন।

বিঃদ্রঃ মানব সংবাদ সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে